মারিউপোলে পূর্ণ বিজয় ঘোষণা রাশিয়ার

  • আপডেট সময় : ১১:১৯:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২১ মে ২০২২
  • / 169
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

দীর্ঘ আড়াই মাসেরও বেশি সময় যুদ্ধের পর অবশেষে রুশ বাহিনীর পূর্ণ দখলে এসেছে ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় উপকূলীয় শহর মারিউপোল। শুক্রবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মারিউপোলে ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রধান ঘাঁটি আজভস্তাল ইস্পাত কারখানায় রয়ে যাওয়া ৫৩১ জন সেনাসদস্যের সবাই শুক্রবার আত্মসমর্পণ করেছে। মস্কোর দাবি, গত ১৭ মে থেকে এ পর্যন্ত ৪ দিনে আজভস্তাল ইস্পাত কারখানা থেকে ২৪৩৯ জন ইউক্রেনীয় সেনা আত্মসমর্পণ করেছে।

শুক্রবার ইউক্রেনের একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘ইউক্রেনের সেনা বাহিনীর সদর দপ্তর (আজভস্তালের) সেনাসদস্যদের ওই এলাকা থেকে বের হওয়া এবং নিজেদের জীবন রক্ষার নির্দেশ দিয়েছিল। তারা সেই নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করেছে।’

আজভ সাগরের তীরবর্তী মারিউপোল শহরটি কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল রুশ বাহিনীর কাছে। ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকেই এই শহরটি নিজেদের দখলে নেওয়ার চেষ্টায় ছিল রাশিয়া।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর ২ মার্চ মারিউপোলে প্রবেশ করে রুশ সেনারা। প্রান্তিক বিভিন্ন এলাকা দখলের পর ৪ মার্চ শহরটির কেন্দ্রীয় অঞ্চলের দিকে এগোতে শুরু করে রুশ বাহিনী।

রুশ গোলার অব্যাহত আঘাত থেকে বাঁচতে অবশেষে তারা মারিউপোল শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে আজভস্তাল ইস্পাত কারখানার ভূগর্ভস্থ ঘরগুলোতে আশ্রয় নেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শিশু ও নারী ছিলেন। শহরের প্রায় সব এলাকায় রুশ সেনাদের হাতে পরাজিত হয়ে ইউক্রেনীয় সেনাদের একাংশও আশ্রয় নেন ওই কারখানায়।

সাবেক সোভিয়েত আমলে প্রায় ৫ মাইল এলাকাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত এই কারখানাটি হয়ে ওঠে ইউক্রেনীয় বাহিনীর সবচেয়ে শক্তিশালী ঘাঁটি।

গত ১৭ মার্চ ইস্পাত কারখানা ব্যতীত গোটা মারিউপোল দখলে বোমাবর্ষণ শুরু করে রুশ বাহিনী। শহর দখলের পর ২২ এপ্রিল আজভস্তাল কারখানা অঞ্চল ঘেরাও করে ফেলে রুশ সেনারা এবং ইউক্রেনীয় সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হয়।

কিন্তু ইউক্রেন বাহিনী তাতে সাড়া না দেওয়ায় এক পর্যায়ে বোমা মেরে ওই কারখানা উড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল রুশ সেনারা। তবে কারখানাটিকে কয়েক হাজার বেসামরিক থাকায় এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত থাকতে সেনাদের নির্দেশ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

প্রায় এক মাস যুদ্ধ ও সংঘাতের পর আজভস্তাল দখল করল রুশ সেনারা। তবে গত আড়াই মাসের যুদ্ধে রীতিমতো ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ বন্দরশহর মারিউপোল।

আজভস্তালের আত্মসমর্পণ করা ইউক্রেনীয় সেনারা দেশটির জাতীয় বীর হিসেবে আখ্যায়িত হচ্ছেন।   ইউক্রেনের সরকারি কর্মকর্তারা আশা করছেন, আত্মসমর্পণ করা এই সেনাদের অন্যান্য ইউক্রেনীয় সেনার মতো বন্দিবিনিময়ের মাধ্যমে ফিরিয়ে দেবে মস্কো। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও বলেছেন, আত্মসমর্পণ করা এই বন্দিদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী আচরণ করা হবে।

তবে এখনও এ ব্যাপারে কিছু অনিশ্চয়তা আছে। কারণ, মঙ্গলবার আজভস্তালে অবস্থান নেওয়া ইউক্রেনীয় সেনাদের ‘নাৎসাী অপরাধী’ হিসেবে ঘোষণা করতে আইন পাস হয়েছে রাশিয়ার পার্লামেন্ট দুমায়।

মারিউপোলে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর ইউনিট দেশটির অন্যান্য সেনা ইউনিট থেকে আলাদা। জাতীয় সেনা কমান্ডে যুক্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত এই ইউনিটটি কট্টর ডানপন্থী একটি মিলিশিয়া বাহিনী ছিল। ‘আজভ ব্যাটালিয়ন’ নামের এই ব্যাটালিয়নটি গঠিত হয়েছিল ২০১৪ সালে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

মারিউপোলে পূর্ণ বিজয় ঘোষণা রাশিয়ার

আপডেট সময় : ১১:১৯:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২১ মে ২০২২

দীর্ঘ আড়াই মাসেরও বেশি সময় যুদ্ধের পর অবশেষে রুশ বাহিনীর পূর্ণ দখলে এসেছে ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় উপকূলীয় শহর মারিউপোল। শুক্রবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মারিউপোলে ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রধান ঘাঁটি আজভস্তাল ইস্পাত কারখানায় রয়ে যাওয়া ৫৩১ জন সেনাসদস্যের সবাই শুক্রবার আত্মসমর্পণ করেছে। মস্কোর দাবি, গত ১৭ মে থেকে এ পর্যন্ত ৪ দিনে আজভস্তাল ইস্পাত কারখানা থেকে ২৪৩৯ জন ইউক্রেনীয় সেনা আত্মসমর্পণ করেছে।

শুক্রবার ইউক্রেনের একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘ইউক্রেনের সেনা বাহিনীর সদর দপ্তর (আজভস্তালের) সেনাসদস্যদের ওই এলাকা থেকে বের হওয়া এবং নিজেদের জীবন রক্ষার নির্দেশ দিয়েছিল। তারা সেই নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করেছে।’

আজভ সাগরের তীরবর্তী মারিউপোল শহরটি কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল রুশ বাহিনীর কাছে। ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকেই এই শহরটি নিজেদের দখলে নেওয়ার চেষ্টায় ছিল রাশিয়া।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর ২ মার্চ মারিউপোলে প্রবেশ করে রুশ সেনারা। প্রান্তিক বিভিন্ন এলাকা দখলের পর ৪ মার্চ শহরটির কেন্দ্রীয় অঞ্চলের দিকে এগোতে শুরু করে রুশ বাহিনী।

রুশ গোলার অব্যাহত আঘাত থেকে বাঁচতে অবশেষে তারা মারিউপোল শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে আজভস্তাল ইস্পাত কারখানার ভূগর্ভস্থ ঘরগুলোতে আশ্রয় নেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শিশু ও নারী ছিলেন। শহরের প্রায় সব এলাকায় রুশ সেনাদের হাতে পরাজিত হয়ে ইউক্রেনীয় সেনাদের একাংশও আশ্রয় নেন ওই কারখানায়।

সাবেক সোভিয়েত আমলে প্রায় ৫ মাইল এলাকাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত এই কারখানাটি হয়ে ওঠে ইউক্রেনীয় বাহিনীর সবচেয়ে শক্তিশালী ঘাঁটি।

গত ১৭ মার্চ ইস্পাত কারখানা ব্যতীত গোটা মারিউপোল দখলে বোমাবর্ষণ শুরু করে রুশ বাহিনী। শহর দখলের পর ২২ এপ্রিল আজভস্তাল কারখানা অঞ্চল ঘেরাও করে ফেলে রুশ সেনারা এবং ইউক্রেনীয় সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হয়।

কিন্তু ইউক্রেন বাহিনী তাতে সাড়া না দেওয়ায় এক পর্যায়ে বোমা মেরে ওই কারখানা উড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল রুশ সেনারা। তবে কারখানাটিকে কয়েক হাজার বেসামরিক থাকায় এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত থাকতে সেনাদের নির্দেশ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

প্রায় এক মাস যুদ্ধ ও সংঘাতের পর আজভস্তাল দখল করল রুশ সেনারা। তবে গত আড়াই মাসের যুদ্ধে রীতিমতো ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ বন্দরশহর মারিউপোল।

আজভস্তালের আত্মসমর্পণ করা ইউক্রেনীয় সেনারা দেশটির জাতীয় বীর হিসেবে আখ্যায়িত হচ্ছেন।   ইউক্রেনের সরকারি কর্মকর্তারা আশা করছেন, আত্মসমর্পণ করা এই সেনাদের অন্যান্য ইউক্রেনীয় সেনার মতো বন্দিবিনিময়ের মাধ্যমে ফিরিয়ে দেবে মস্কো। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও বলেছেন, আত্মসমর্পণ করা এই বন্দিদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী আচরণ করা হবে।

তবে এখনও এ ব্যাপারে কিছু অনিশ্চয়তা আছে। কারণ, মঙ্গলবার আজভস্তালে অবস্থান নেওয়া ইউক্রেনীয় সেনাদের ‘নাৎসাী অপরাধী’ হিসেবে ঘোষণা করতে আইন পাস হয়েছে রাশিয়ার পার্লামেন্ট দুমায়।

মারিউপোলে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর ইউনিট দেশটির অন্যান্য সেনা ইউনিট থেকে আলাদা। জাতীয় সেনা কমান্ডে যুক্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত এই ইউনিটটি কট্টর ডানপন্থী একটি মিলিশিয়া বাহিনী ছিল। ‘আজভ ব্যাটালিয়ন’ নামের এই ব্যাটালিয়নটি গঠিত হয়েছিল ২০১৪ সালে।