ঢাকা ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পরকীয়ার জেরে স্ত্রীকে হত্যা

  • আপডেট সময় : ১১:৩৮:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • / 138
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় পরকীয়ার জেরে আকলিমা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর দুই শিশুসন্তান আব্দুল্লাহ (৯) ও জান্নাত (৫) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহত আকলিমা উপজেলার ধরখারের প্রবাসফেরত মামুন মিয়ার স্ত্রী ও জেলার নবীনগর উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের আব্দুল মুত্তালিবের মেয়ে।

নিহত নারীর মা তাহেরা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ১১ বছর আগে আখাউড়া উপজেলার ধরখারের বাচ্চু মিয়ার ছেলে মামুনের সঙ্গে আকলিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের একটি ছেলেসন্তান হয়। এরপর মামুন ওমানে চলে যান। তিনি মাঝেমধ্যে দেশে আসা-যাওয়া করতেন। এরই মধ্যে তাদের একটি কন্যাসন্তান হয়। এসময় মামুন প্রবাসে এক নারীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এনিয়ে মামুনের সঙ্গে আকলিমার কলহ চলে আসছিল।

দুই বছর আগে দেশে চলে আসে মামুন। এরপরও তিনি পরকীয়া সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এনিয়ে আকলিমার সঙ্গে তার মনোমালিন্য তীব্র হয়। এক পর্যায়ে আকলিমা দুই সন্তান নিয়ে বাবার বাড়িতে থাকতে শুরু করেন।

সম্প্রতি মামুনের এক চাচা মারা যান। তার রুহের মাগফিরাত কামনা করে শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) মানুষকে আপ্যায়ন করা হবে। মামুন অনুষ্ঠানের কথা বলে আকলিমা ও তার দুই সন্তানকে বাড়িতে নিয়ে আসতে বলেন।

বুধবার (৯ ফেব্রুয়ারি) আকলিমা সন্তানদের নিয়ে স্বামীর বাড়িতে যান। আজ সকালে আকলিমার মা জানতে পারেন তার মেয়ে ও দুই নাতি-নাতনি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে জানতে পারেন তার মেয়ের মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করা হয়েছে। তার নাতি-নাতনিকেও মুখে বিষ ঢেলে হত্যাচেষ্টা করা হয়। তারা এখন হাসপাতালে ভর্তি আছে।

এ ব্যাপারে আখাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় সরকার বলেন, এক নারী বিষ প্রয়োগে মারা গেছেন ও দুই শিশু হাসপাতালে ভর্তি আছে বলে জানতে পেরেছি। আমরা হাসপাতালে পুলিশ পাঠিয়েছি। মরদেহ মর্গে রাখা আছে। বিষয়টি তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

পরকীয়ার জেরে স্ত্রীকে হত্যা

আপডেট সময় : ১১:৩৮:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২২

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় পরকীয়ার জেরে আকলিমা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর দুই শিশুসন্তান আব্দুল্লাহ (৯) ও জান্নাত (৫) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহত আকলিমা উপজেলার ধরখারের প্রবাসফেরত মামুন মিয়ার স্ত্রী ও জেলার নবীনগর উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের আব্দুল মুত্তালিবের মেয়ে।

নিহত নারীর মা তাহেরা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ১১ বছর আগে আখাউড়া উপজেলার ধরখারের বাচ্চু মিয়ার ছেলে মামুনের সঙ্গে আকলিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের একটি ছেলেসন্তান হয়। এরপর মামুন ওমানে চলে যান। তিনি মাঝেমধ্যে দেশে আসা-যাওয়া করতেন। এরই মধ্যে তাদের একটি কন্যাসন্তান হয়। এসময় মামুন প্রবাসে এক নারীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এনিয়ে মামুনের সঙ্গে আকলিমার কলহ চলে আসছিল।

দুই বছর আগে দেশে চলে আসে মামুন। এরপরও তিনি পরকীয়া সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এনিয়ে আকলিমার সঙ্গে তার মনোমালিন্য তীব্র হয়। এক পর্যায়ে আকলিমা দুই সন্তান নিয়ে বাবার বাড়িতে থাকতে শুরু করেন।

সম্প্রতি মামুনের এক চাচা মারা যান। তার রুহের মাগফিরাত কামনা করে শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) মানুষকে আপ্যায়ন করা হবে। মামুন অনুষ্ঠানের কথা বলে আকলিমা ও তার দুই সন্তানকে বাড়িতে নিয়ে আসতে বলেন।

বুধবার (৯ ফেব্রুয়ারি) আকলিমা সন্তানদের নিয়ে স্বামীর বাড়িতে যান। আজ সকালে আকলিমার মা জানতে পারেন তার মেয়ে ও দুই নাতি-নাতনি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে জানতে পারেন তার মেয়ের মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করা হয়েছে। তার নাতি-নাতনিকেও মুখে বিষ ঢেলে হত্যাচেষ্টা করা হয়। তারা এখন হাসপাতালে ভর্তি আছে।

এ ব্যাপারে আখাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় সরকার বলেন, এক নারী বিষ প্রয়োগে মারা গেছেন ও দুই শিশু হাসপাতালে ভর্তি আছে বলে জানতে পেরেছি। আমরা হাসপাতালে পুলিশ পাঠিয়েছি। মরদেহ মর্গে রাখা আছে। বিষয়টি তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।