ঢাকা ১০:০১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
‘আরতাসের’ যাত্রা শুরু অনুষ্ঠানে শিমুল: ‘স্কীল ডেভেলপড করতে না পারলে আমরা এই ট্রেড থেকে হারিয়ে যাবো’ লিবিয়া থেকে খালী হাতে ফিরেছে ১৬২ হতভাগ্য বাংলাদেশী মালয়েশিয়ার উড়োজাহাজে উঠতে না পারা প্রতারিত শ্রমিকরা কত টাকা ফেরত পাচ্ছেন? জনশক্তি ব্যুরোর ২১ কর্মচারীকে বদলী ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচনে জয়ী চার বঙ্গকন্যা আটলান্টিক মহাসাগর থেকে ৮৯ অভিবাসীর লাশ উদ্ধার আইজিপি পদে আরো এক বছরের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেলেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন মালয়েশিয়ায় যেতে না পারা কর্মীদের টাকা ১৮ জুলাইয়ের মধ্যে ফেরত দেয়ার নির্দেশ ইউক্রেনে জয়ের জন্য রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রয়োজন নেই মিল্টন সমাদ্দার ৩ দিনের রিমান্ড

অক্টোবরে প্রবাসী আয় এলো ২১ হাজার ৮৫২ কোটি টাকা

  • আপডেট সময় : ০৯:৪৬:১৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০২৩
  • / 140
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

প্রণোদনা বৃদ্ধিতে প্রবাসী আয়ের পালে হাওয়া লেগেছে। অক্টোবর শেষে প্রবাসী আয় এসেছে ১৯৭ কোটি ৭৫ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২১ হাজার ৮৫২ কোটি টাকার বেশি (প্রতি ডলার ১১০ টাকা ৫০ পয়সা ধরে)। প্রতিদিন এসেছে প্রায় ছয় কোটি ৩৯ লাখ ডলার বা ৭০৫ কোটি টাকা। বুধবার (১ নভেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের হাল নাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

গত সেপ্টেম্বরে শেষ ৪১ মাসের সর্বনিম্ন ১৩৩ কোটি ৪৩ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার প্রবাসী আয় আসে। ডলারে দাম বাড়ানোর পাশাপাশি প্রণোদনা বৃদ্ধির এক মাসের ব্যবধানে ৬৪ কোটি ৩২ লাখ ১০ হাজার ডলার বা ৫১ হাজার ৩০৭ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বেড়ে গেছে। যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে বেশি। ২০২২ সালের অক্টোবর মাসে প্রবাসী আয় এসেছিল ১৫২ কোটি ৫৫ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার।

অক্টোবর মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের ৬ বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১৫ কোটি ৪৪ লাখ ৭০ হাজার ডলার। বিশেষায়িত কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ৫ কোটি ৮২ লাখ ডলার। সব বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ১৭৫ কোটি ৮৮ লাখ ৬০ হাজার ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ৬০ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার।

যখন সরকার ডলার সংকটে হিমসিম খাচ্ছে, রিজার্ভে টান পড়েছে- সে সময়ে ডলার ও প্রবাসে আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস প্রবাসী আয়ের ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এ সময়ে কয়েক দফায় প্রবাসী আয়ের ডলারের মূল্য বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রণোদনা বাড়িয়েছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার ডলারের দাম ৫০ পয়সা বাড়িয়ে ১১০ টাকা ৫০ পয়সা করা হয়েছে। গত সপ্তাহে প্রবাসী আয়ে সরকারের ২ দশমিক ৫০ শতাংশ প্রণোদনার পাশাপাশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ২ দশমিক ৫০ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার অনুমতি দেয়। এর ফলে প্রবাসী আয়ের ১ ডলারের বিপরীতে প্রায় ১১৬ টাকা পাচ্ছে।

সাধারণত হুন্ডির মাধ্যমে আসায় কয়েক মাস ধরে প্রবাসী আয় আশঙ্কজনকভাবে কমে যায়। বিষয়টি সরকারের নীতি নির্ধারক মহলের তাগাদায় জরুরি বৈঠকে বসে বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাফেদা) ও অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (এবিবি)। সিদ্ধান্তে প্রবাসী আয়ের ডলারের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি প্রণোদনা বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা। আর এতেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রবাসী আয়।

আগামীতে প্রবাসী আয়ের এ ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

অক্টোবরে প্রবাসী আয় এলো ২১ হাজার ৮৫২ কোটি টাকা

আপডেট সময় : ০৯:৪৬:১৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০২৩

প্রণোদনা বৃদ্ধিতে প্রবাসী আয়ের পালে হাওয়া লেগেছে। অক্টোবর শেষে প্রবাসী আয় এসেছে ১৯৭ কোটি ৭৫ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২১ হাজার ৮৫২ কোটি টাকার বেশি (প্রতি ডলার ১১০ টাকা ৫০ পয়সা ধরে)। প্রতিদিন এসেছে প্রায় ছয় কোটি ৩৯ লাখ ডলার বা ৭০৫ কোটি টাকা। বুধবার (১ নভেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের হাল নাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

গত সেপ্টেম্বরে শেষ ৪১ মাসের সর্বনিম্ন ১৩৩ কোটি ৪৩ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার প্রবাসী আয় আসে। ডলারে দাম বাড়ানোর পাশাপাশি প্রণোদনা বৃদ্ধির এক মাসের ব্যবধানে ৬৪ কোটি ৩২ লাখ ১০ হাজার ডলার বা ৫১ হাজার ৩০৭ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বেড়ে গেছে। যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে বেশি। ২০২২ সালের অক্টোবর মাসে প্রবাসী আয় এসেছিল ১৫২ কোটি ৫৫ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার।

অক্টোবর মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের ৬ বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১৫ কোটি ৪৪ লাখ ৭০ হাজার ডলার। বিশেষায়িত কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ৫ কোটি ৮২ লাখ ডলার। সব বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ১৭৫ কোটি ৮৮ লাখ ৬০ হাজার ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে আসে ৬০ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার।

যখন সরকার ডলার সংকটে হিমসিম খাচ্ছে, রিজার্ভে টান পড়েছে- সে সময়ে ডলার ও প্রবাসে আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস প্রবাসী আয়ের ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এ সময়ে কয়েক দফায় প্রবাসী আয়ের ডলারের মূল্য বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রণোদনা বাড়িয়েছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার ডলারের দাম ৫০ পয়সা বাড়িয়ে ১১০ টাকা ৫০ পয়সা করা হয়েছে। গত সপ্তাহে প্রবাসী আয়ে সরকারের ২ দশমিক ৫০ শতাংশ প্রণোদনার পাশাপাশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ২ দশমিক ৫০ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার অনুমতি দেয়। এর ফলে প্রবাসী আয়ের ১ ডলারের বিপরীতে প্রায় ১১৬ টাকা পাচ্ছে।

সাধারণত হুন্ডির মাধ্যমে আসায় কয়েক মাস ধরে প্রবাসী আয় আশঙ্কজনকভাবে কমে যায়। বিষয়টি সরকারের নীতি নির্ধারক মহলের তাগাদায় জরুরি বৈঠকে বসে বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাফেদা) ও অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (এবিবি)। সিদ্ধান্তে প্রবাসী আয়ের ডলারের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি প্রণোদনা বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা। আর এতেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রবাসী আয়।

আগামীতে প্রবাসী আয়ের এ ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।