ঢাকা ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
‘আরতাসের’ যাত্রা শুরু অনুষ্ঠানে শিমুল: ‘স্কীল ডেভেলপড করতে না পারলে আমরা এই ট্রেড থেকে হারিয়ে যাবো’ লিবিয়া থেকে খালী হাতে ফিরেছে ১৬২ হতভাগ্য বাংলাদেশী মালয়েশিয়ার উড়োজাহাজে উঠতে না পারা প্রতারিত শ্রমিকরা কত টাকা ফেরত পাচ্ছেন? জনশক্তি ব্যুরোর ২১ কর্মচারীকে বদলী ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচনে জয়ী চার বঙ্গকন্যা আটলান্টিক মহাসাগর থেকে ৮৯ অভিবাসীর লাশ উদ্ধার আইজিপি পদে আরো এক বছরের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেলেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন মালয়েশিয়ায় যেতে না পারা কর্মীদের টাকা ১৮ জুলাইয়ের মধ্যে ফেরত দেয়ার নির্দেশ ইউক্রেনে জয়ের জন্য রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রয়োজন নেই মিল্টন সমাদ্দার ৩ দিনের রিমান্ড

ভালোবাসার টানে নোয়াখালীতে মিসরের তরুণী

  • আপডেট সময় : ০৫:৫৩:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০২২
  • / 111
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভাষা-সংস্কৃতির ভেদাভেদ ভুলে গোলাম সারোয়ার বাবু (২৬) নামে এক যুবককে বিয়ে করে সুদুর মিসর থেকে বাংলাদেশে এসেছেন দালিয়া (২৬) নামে এক মিসরীয় তরুণী। গতকাল বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় এই দম্পতি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার নবীপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের গোবিন্দপুর গ্রামে বাড়িতে আসেন।

২০২০ সালে বাবু ও দালিয়া মিসরে বিয়ে করেন। বিয়ের পর প্রথম এই দম্পতি প্রথম বাংলাদেশে এসেছেন। এদিকে বিদেশি বধূকে দেখতে আশপাশের এলাকার মানুষ বাবুদের বাড়িতে ভিড় করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নোয়াখালীর যুবক গোলাম সারোয়ার বাবু ২০১২ সালে জীবিকার সন্ধানে মিসর যান। সেখানে একটি গার্মেন্টেসে চাকরি নেন। মিসরী তরুণী দালিয়াদের বাসার পাশেই থাকতেন বাবু। দালিয়ার ভাইয়ের সঙ্গে বাবুর বন্ধুত্ব ছিল। এ সুবাধে মাঝে মধ্যে দালিয়াদের বাসায় যাতায়াত ছিল। এক সময় বাবু ডালিয়াকে তার ভালো লাগার বিষয়টি জানান। এতে ডালিয়া রাজি হলে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৮ সালের দিকে দালিয়ার পরিবারে বিয়ের প্রস্তাব দিলে তার পরিবারের কেউই রাজি হননি। পরে দালিয়া অনেক কান্নাকাটি করে তার মা-বাবাকে রাজি করালে ২০২০ সালে ওই দেশের আইন কানুন মেনে মিসরে তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। গত বছর তাদের একটি সন্তান হয়। জন্মের অল্প কিছুদিন পরে সন্তানটি মারা যায়। এরপর এই প্রথম দুজন একসঙ্গে বাংলাদেশে আসেন।

গোলাম সারোয়ার বাবু বলেন, শ্বশুরবাড়ি ঘুরে দেখতে দালিয়া বাংলাদেশে এসেছে। আমরা বর্তমানে সুখে-শান্তিতে দিন কাটাচ্ছি। বিদেশি পুত্রবধূকে কাছে পেয়ে আমার বাবা-মা আনন্দিত।

কিছুটা বাংলা বলতে শিখেছেন দালিয়া। তিনি বলেন, বাংলাদেশি খাবার এবং পরিবেশ আমার ভালো লাগে। এটা আমার স্বামীর দেশ। এ দেশকে ভালোবাসি। তবে মাংসের চেয়ে আলু তার বেশি পছন্দ বলেও মন্তব্য করেন এই তরুণী।

স্থানীয় বাসিন্দা মো. জীবন বলেন, আমাদের নোয়াখালীতে বিদেশি তরুণী এসেছে। আমরা এতে অনেক খুশি। আমাদের নোয়াখালীর আতিথেয়তা দিয়ে তার মন আমরা জয় করব। গ্রামীণ পরিবেশ ঘুরে দেখাবো। আশা করি সে খুশি মনে বাংলাদেশ থেকে ফিরে যাবে এবং সুনাম করবে।

বাবুর বাবা গোলাম মাওলা মিয়া বলেন, পুত্রবধূ বাংলা ভাষা একটু-আধটু বলার চেষ্টা করে। এছাড়াও ইশারা-ইঙ্গিতে কথা বলছে। বিদেশি পুত্রবধূকে কাছে পেয়ে পরিবারের সবাই আনন্দিত।

নবীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন সোহেল বলেন, বিদেশি পুত্রবধূকে দেখার জন্য শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করছে। গ্রামের মানুষ এতে খুশি। দুজনের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।

সেনবাগ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী বলেন, পুলিশ একবার তাদের বাড়িতে গিয়েছে। কোনো সমস্যা হলে আমাদের জানাতে বলেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

ভালোবাসার টানে নোয়াখালীতে মিসরের তরুণী

আপডেট সময় : ০৫:৫৩:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০২২

ভাষা-সংস্কৃতির ভেদাভেদ ভুলে গোলাম সারোয়ার বাবু (২৬) নামে এক যুবককে বিয়ে করে সুদুর মিসর থেকে বাংলাদেশে এসেছেন দালিয়া (২৬) নামে এক মিসরীয় তরুণী। গতকাল বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় এই দম্পতি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার নবীপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের গোবিন্দপুর গ্রামে বাড়িতে আসেন।

২০২০ সালে বাবু ও দালিয়া মিসরে বিয়ে করেন। বিয়ের পর প্রথম এই দম্পতি প্রথম বাংলাদেশে এসেছেন। এদিকে বিদেশি বধূকে দেখতে আশপাশের এলাকার মানুষ বাবুদের বাড়িতে ভিড় করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নোয়াখালীর যুবক গোলাম সারোয়ার বাবু ২০১২ সালে জীবিকার সন্ধানে মিসর যান। সেখানে একটি গার্মেন্টেসে চাকরি নেন। মিসরী তরুণী দালিয়াদের বাসার পাশেই থাকতেন বাবু। দালিয়ার ভাইয়ের সঙ্গে বাবুর বন্ধুত্ব ছিল। এ সুবাধে মাঝে মধ্যে দালিয়াদের বাসায় যাতায়াত ছিল। এক সময় বাবু ডালিয়াকে তার ভালো লাগার বিষয়টি জানান। এতে ডালিয়া রাজি হলে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৮ সালের দিকে দালিয়ার পরিবারে বিয়ের প্রস্তাব দিলে তার পরিবারের কেউই রাজি হননি। পরে দালিয়া অনেক কান্নাকাটি করে তার মা-বাবাকে রাজি করালে ২০২০ সালে ওই দেশের আইন কানুন মেনে মিসরে তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। গত বছর তাদের একটি সন্তান হয়। জন্মের অল্প কিছুদিন পরে সন্তানটি মারা যায়। এরপর এই প্রথম দুজন একসঙ্গে বাংলাদেশে আসেন।

গোলাম সারোয়ার বাবু বলেন, শ্বশুরবাড়ি ঘুরে দেখতে দালিয়া বাংলাদেশে এসেছে। আমরা বর্তমানে সুখে-শান্তিতে দিন কাটাচ্ছি। বিদেশি পুত্রবধূকে কাছে পেয়ে আমার বাবা-মা আনন্দিত।

কিছুটা বাংলা বলতে শিখেছেন দালিয়া। তিনি বলেন, বাংলাদেশি খাবার এবং পরিবেশ আমার ভালো লাগে। এটা আমার স্বামীর দেশ। এ দেশকে ভালোবাসি। তবে মাংসের চেয়ে আলু তার বেশি পছন্দ বলেও মন্তব্য করেন এই তরুণী।

স্থানীয় বাসিন্দা মো. জীবন বলেন, আমাদের নোয়াখালীতে বিদেশি তরুণী এসেছে। আমরা এতে অনেক খুশি। আমাদের নোয়াখালীর আতিথেয়তা দিয়ে তার মন আমরা জয় করব। গ্রামীণ পরিবেশ ঘুরে দেখাবো। আশা করি সে খুশি মনে বাংলাদেশ থেকে ফিরে যাবে এবং সুনাম করবে।

বাবুর বাবা গোলাম মাওলা মিয়া বলেন, পুত্রবধূ বাংলা ভাষা একটু-আধটু বলার চেষ্টা করে। এছাড়াও ইশারা-ইঙ্গিতে কথা বলছে। বিদেশি পুত্রবধূকে কাছে পেয়ে পরিবারের সবাই আনন্দিত।

নবীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন সোহেল বলেন, বিদেশি পুত্রবধূকে দেখার জন্য শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করছে। গ্রামের মানুষ এতে খুশি। দুজনের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।

সেনবাগ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী বলেন, পুলিশ একবার তাদের বাড়িতে গিয়েছে। কোনো সমস্যা হলে আমাদের জানাতে বলেছি।