চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে নুর আলী হাসপাতাল কমপ্লেক্স নির্মানের জমি চাইতেই সেলিনা নুর এক বাক্য লিখে দেন

  • আপডেট সময় : ০৪:৫৫:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারী ২০২২
  • / 190
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
প্রবাসী কন্ঠ রিপোর্ট >
সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে নবাবগঞ্জের চুড়াইনে ২৫ বিঘা জমির ওপর গঠে উঠছে আধুনিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে সেলিনা নূর-বাডাস ট্রাস্ট। এ লক্ষ্যে গতকাল সোমবার হোটেল শেরাটন ঢাকায় ইউনিক গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান বোরাক রিয়েল এস্টেট ও বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির (বাডাস) মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হয়। নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর করেন ইউনিক গ্রুপ ও বোরাক রিয়েল এস্টেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহা. নূর আলী ও চেয়ারপারসন সেলিনা আলী। বাডাসের পক্ষে স্বাক্ষর করেন মহাসচিব মো. সাইফ উদ্দিন। সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ইউনিক গ্রুপ ও বোরাক রিয়েল এস্টেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহা. নূর আলী বলেন, ‘এলাকার মানুষের জন্য কিছু একটা করার বাসনা থেকে এমন শুভ উদ্যোগ। এটি অনেক আগেই করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু পারিপার্শ্বিক নানা কারণে হয়ে ওঠেনি।’ তিনি বলেন, ‘সত্যি আমি আনন্দিত। হাসপাতাল কমপ্লেক্স নির্মাণের জন্য জমি চাইতেই সেলিনা নূর এক বাক্যে লিখে দেন। এ জন্য তাকে ধন্যবাদ জানাই।’ তিনি আরও বলেন, ‘ভালো কাজ করতে গেলে নানা বাধা আসে। পদে পদে বেগ পেতে হয়। সেসব বাধা উপেক্ষা করেই আজ এ পর্যন্ত আসা।’ হাসপাতালের চিকিৎসার মান নিয়ে তিনি বলেন, কোনোভাবেই মানের সঙ্গে আপস করা হবে না। সর্বোচ্চ মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা দিতে তিনি বাডাসকে পরামর্শ দেন। মোহা. নূর আলী বলেন, ‘চিকিৎসার মান ভালো হলে ফিটব্যাকটাও ভালো পাওয়া যায়। চিকিৎসার মান ভালো হলে মানুষ গ্রামেও চিকিৎসা নিতে যাবেন। ভালো পরিবেশ থাকলে ভালো মানের চিকিৎসকও সেখানে যাবেন।’ বাডাসের মহাসচিব মো. সাইফ উদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি গড়ে উঠেছে মানুষের সহায়তা ও সরকারের সহযোগিতায়। কোনো ভালো কাজ টাকার জন্য আটকে থাকে না। দেশের ৬১ জেলায় ডায়াবেটিকস সমিতি আছে। এখন উপজেলা পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। এ সবই মানুষের সহযোগিতায় হয়েছে। যেখানে যে সেবা দেওয়া দরকার, সেখানে তাই দেওয়ার চেষ্টা চলছে।’ তিনি বলেন, ‘সারাবিশ্বে নার্সের সংকট রয়েছে। ভালো নার্স তৈরি করতে পারলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চাকরির সুযোগ তৈরি হবে। বারডেম আগেই নার্সিং কার্যক্রম শুরু করেছে। এটাকে এগিয়ে নিতে চাই। সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতায় সামনে এগিয়ে নিতে হবে।’ উল্লেখ্য, ঢাকার অদূরে নবাবগঞ্জ থানাধীন চুড়াইন ইউনিয়নের চুড়াইন আদর্শ ডিগ্রি অনার্স কলেজের পাশে ২৫ বিঘা জমির ওপর গড়ে উঠছে আধুনিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এখানে থাকবে ১ হাজার শয্যার জেনারেল হাসপাতাল, ২০০ শয্যার ক্যানসার ইনস্টিটিউট ও ডরমেটরি। এছাড়া মেডিক্যাল কলেজ, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এবং নার্সিং ইনস্টিটিউটও হবে সেখানে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক একে আজাদ খান, পরিচালক (প্রকল্প ও উন্নয়ন) মো. গোলাম কিবরিয়া, জ্যেষ্ঠ পরিচালক (অর্থ-হিসাব) বিশ্বজিৎ মজুমদার, ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্স ইনস্টিটিউটের উপদেষ্টা মাশেকুর রহমান, ইউনিক গ্রুপের উপদেষ্টা ড. খন্দকার শওকত হোসাইন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম সারওয়ার, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ট্রাস্ট) সৈয়দ সানোয়ারুল হক, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) ডা. মিজানুর রহমান, মো. শরীফ হাসান, পরিচালক-রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স ও কোম্পানি সচিব শেখ মো. রতন, সহকারী মহাব্যবস্থাপক (ল্যান্ড) প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে নুর আলী হাসপাতাল কমপ্লেক্স নির্মানের জমি চাইতেই সেলিনা নুর এক বাক্য লিখে দেন

আপডেট সময় : ০৪:৫৫:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারী ২০২২
প্রবাসী কন্ঠ রিপোর্ট >
সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে নবাবগঞ্জের চুড়াইনে ২৫ বিঘা জমির ওপর গঠে উঠছে আধুনিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে সেলিনা নূর-বাডাস ট্রাস্ট। এ লক্ষ্যে গতকাল সোমবার হোটেল শেরাটন ঢাকায় ইউনিক গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান বোরাক রিয়েল এস্টেট ও বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির (বাডাস) মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হয়। নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর করেন ইউনিক গ্রুপ ও বোরাক রিয়েল এস্টেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহা. নূর আলী ও চেয়ারপারসন সেলিনা আলী। বাডাসের পক্ষে স্বাক্ষর করেন মহাসচিব মো. সাইফ উদ্দিন। সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ইউনিক গ্রুপ ও বোরাক রিয়েল এস্টেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহা. নূর আলী বলেন, ‘এলাকার মানুষের জন্য কিছু একটা করার বাসনা থেকে এমন শুভ উদ্যোগ। এটি অনেক আগেই করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু পারিপার্শ্বিক নানা কারণে হয়ে ওঠেনি।’ তিনি বলেন, ‘সত্যি আমি আনন্দিত। হাসপাতাল কমপ্লেক্স নির্মাণের জন্য জমি চাইতেই সেলিনা নূর এক বাক্যে লিখে দেন। এ জন্য তাকে ধন্যবাদ জানাই।’ তিনি আরও বলেন, ‘ভালো কাজ করতে গেলে নানা বাধা আসে। পদে পদে বেগ পেতে হয়। সেসব বাধা উপেক্ষা করেই আজ এ পর্যন্ত আসা।’ হাসপাতালের চিকিৎসার মান নিয়ে তিনি বলেন, কোনোভাবেই মানের সঙ্গে আপস করা হবে না। সর্বোচ্চ মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা দিতে তিনি বাডাসকে পরামর্শ দেন। মোহা. নূর আলী বলেন, ‘চিকিৎসার মান ভালো হলে ফিটব্যাকটাও ভালো পাওয়া যায়। চিকিৎসার মান ভালো হলে মানুষ গ্রামেও চিকিৎসা নিতে যাবেন। ভালো পরিবেশ থাকলে ভালো মানের চিকিৎসকও সেখানে যাবেন।’ বাডাসের মহাসচিব মো. সাইফ উদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি গড়ে উঠেছে মানুষের সহায়তা ও সরকারের সহযোগিতায়। কোনো ভালো কাজ টাকার জন্য আটকে থাকে না। দেশের ৬১ জেলায় ডায়াবেটিকস সমিতি আছে। এখন উপজেলা পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। এ সবই মানুষের সহযোগিতায় হয়েছে। যেখানে যে সেবা দেওয়া দরকার, সেখানে তাই দেওয়ার চেষ্টা চলছে।’ তিনি বলেন, ‘সারাবিশ্বে নার্সের সংকট রয়েছে। ভালো নার্স তৈরি করতে পারলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চাকরির সুযোগ তৈরি হবে। বারডেম আগেই নার্সিং কার্যক্রম শুরু করেছে। এটাকে এগিয়ে নিতে চাই। সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতায় সামনে এগিয়ে নিতে হবে।’ উল্লেখ্য, ঢাকার অদূরে নবাবগঞ্জ থানাধীন চুড়াইন ইউনিয়নের চুড়াইন আদর্শ ডিগ্রি অনার্স কলেজের পাশে ২৫ বিঘা জমির ওপর গড়ে উঠছে আধুনিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এখানে থাকবে ১ হাজার শয্যার জেনারেল হাসপাতাল, ২০০ শয্যার ক্যানসার ইনস্টিটিউট ও ডরমেটরি। এছাড়া মেডিক্যাল কলেজ, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এবং নার্সিং ইনস্টিটিউটও হবে সেখানে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক একে আজাদ খান, পরিচালক (প্রকল্প ও উন্নয়ন) মো. গোলাম কিবরিয়া, জ্যেষ্ঠ পরিচালক (অর্থ-হিসাব) বিশ্বজিৎ মজুমদার, ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্স ইনস্টিটিউটের উপদেষ্টা মাশেকুর রহমান, ইউনিক গ্রুপের উপদেষ্টা ড. খন্দকার শওকত হোসাইন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম সারওয়ার, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ট্রাস্ট) সৈয়দ সানোয়ারুল হক, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) ডা. মিজানুর রহমান, মো. শরীফ হাসান, পরিচালক-রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স ও কোম্পানি সচিব শেখ মো. রতন, সহকারী মহাব্যবস্থাপক (ল্যান্ড) প্রমুখ।