ঢাকা ১২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেনে ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা একাধিক এয়ারলাইন্সের

  • আপডেট সময় : ০৪:৫২:১৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • / 402
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বিশ্বের ১৩টি দেশ আগেই রাশিয়ার হামলা আতঙ্কে নিজ দেশের নাগরিক ও কূটনীতিকদের ইউক্রেন ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে। এবার বেশকিছু ইউরোপীয় এয়ারলাইন্স প্রতিষ্ঠান ইউক্রেনে ফ্লাইট চলাচল স্থগিতের ঘোষণা দিলো।

এক বিবৃতিতে জার্মান এয়ারলাইন্স লুফথানসা জানিয়েছে, চলমান পরিস্থিতি দেখে খুব শিগগিরই এই রুটে বিমান চলাচলের ব্যাপারে তারা সিদ্ধান্ত জানাবে। ডাচ-ফরাসি বিমান পরিবহন কোম্পানি কেএমএল বলছে, দুই-একদিনের মধ্যেই বন্ধ হবে ফ্লাইটের চলাচল। এ পরিস্থিতিতে রোববার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ইউক্রেন প্রশাসন স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার চাপের মুখে আকাশসীমা বন্ধের কোনো পরিকল্পনা নেই।

এর আগে, ২০১৪ সালে অঞ্চলটিতে সংঘাত চলাকালে মিসাইল ছুঁড়ে ভূপাতিত করা হয় মালয়েশিয়ান বিমান এম এইচ সেভেনটিন। এ ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছিলেন ২৯৮ জন আরোহী। ভয়াবহতার যেনো পুনরাবৃত্তি না হয়, সেই আতঙ্ক থেকেই ফ্লাইট বন্ধের এ পরিকল্পনা। সূত্র : টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

ইউক্রেনে ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা একাধিক এয়ারলাইন্সের

আপডেট সময় : ০৪:৫২:১৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২

বিশ্বের ১৩টি দেশ আগেই রাশিয়ার হামলা আতঙ্কে নিজ দেশের নাগরিক ও কূটনীতিকদের ইউক্রেন ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে। এবার বেশকিছু ইউরোপীয় এয়ারলাইন্স প্রতিষ্ঠান ইউক্রেনে ফ্লাইট চলাচল স্থগিতের ঘোষণা দিলো।

এক বিবৃতিতে জার্মান এয়ারলাইন্স লুফথানসা জানিয়েছে, চলমান পরিস্থিতি দেখে খুব শিগগিরই এই রুটে বিমান চলাচলের ব্যাপারে তারা সিদ্ধান্ত জানাবে। ডাচ-ফরাসি বিমান পরিবহন কোম্পানি কেএমএল বলছে, দুই-একদিনের মধ্যেই বন্ধ হবে ফ্লাইটের চলাচল। এ পরিস্থিতিতে রোববার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ইউক্রেন প্রশাসন স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার চাপের মুখে আকাশসীমা বন্ধের কোনো পরিকল্পনা নেই।

এর আগে, ২০১৪ সালে অঞ্চলটিতে সংঘাত চলাকালে মিসাইল ছুঁড়ে ভূপাতিত করা হয় মালয়েশিয়ান বিমান এম এইচ সেভেনটিন। এ ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছিলেন ২৯৮ জন আরোহী। ভয়াবহতার যেনো পুনরাবৃত্তি না হয়, সেই আতঙ্ক থেকেই ফ্লাইট বন্ধের এ পরিকল্পনা। সূত্র : টিআরটি ওয়ার্ল্ড।