প্রবাসীদের ভোটদানে উৎসাহী করতে চায় ইসি

  • আপডেট সময় : ০৫:৫৪:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ নভেম্বর ২০২৩
  • / 97
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

দেশের বাইরে একটি বিরাট সংখ্যক ভোটার অবস্থান করলেও তারা প্রতি সংসদ নির্বাচনেই ভোটদান কার্যক্রমের বাইরেই থেকে যায়। তবে এবার তাদেরকে ভোটদানে উৎসাহী করতে চেষ্টা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসকে কাজে লাগাতে চায় নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটি।

বুধবার (০১ নভেম্বর) আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম সাংবাদিকদের এমন তথ্য জানিয়েছেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংক, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ, অর্থ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের (সমন্বয় ও সংস্কার) ২৯ জন কর্মকর্তা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া অন্য নির্বাচন কমিশনার এবং ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও এতে উপস্থিত ছিলেন।

মো. জাহাংগীর আলম জানান, আইনের আলোকে পোস্টাল ব্যালটে শুধু এবার নয়, সব সময় ভোট দেওয়ার সুযোগ ছিল। এবারও ভোট দিতে পারবেন। এই ব্যাপারে আইনের বাধ্যবাধকতাও রয়েছে- কমিশন এই বার্তাটি সংশ্লিষ্টদের দিয়েছে।

তিনি বলেন, বিদেশে যে বাংলাদেশি মিশনগুলো রয়েছে তার মাধ্যমে নোটিশ আকারে যেন দেওয়া হয়, এজন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। প্রবাসে বাংলাদেশি যারা দেশের ভোটার তালিকাভূক্ত নাগরিক রয়েছে, তারা যদি ভোট দিতে উৎসাহিত হয়, কী পদ্ধতিতে ভোট দেবে সে বার্তাটা যেন জানিয়ে দেওয়া হয়।

গণপ্রতিনিধিত্ব অ্যাক্ট অনুযায়ী, নির্বাচনি দায়িত্বে নিয়োজিত ভোটার, প্রবাসী বাংলাদেশি ভোটার, সরকারি চাকরিজীবী যিনি চাকরিসূত্রে নিজ এলাকার বাইরে বাস করেন ও কারাবন্দিরা পোস্টাল ব্যালটে ভোটের আবেদন করতে পারেন।

আইনে যা আছে:

গণপ্রতিনিধিত্ব অ্যাক্টের ২৭ দফায় বলা হয়েছে, নির্বাচনে তফসিল প্রকাশ হওয়ার তারিখ থেকে পনেরো দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যে এলাকার ভোটার সেই নির্বাচনি এলাকার রিটার্নিং অফিসারের কাছে ডাকযোগে ব্যালটে ভোট প্রদানের উদ্দেশ্যে একটি ব্যালট পেপারের জন্য আবেদন করবেন এবং অনুরূপ প্রত্যেক আবেদনে ভোটারের নাম, ঠিকানা এবং ভোটার তালিকায় তার ক্রমিক নম্বর সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকবে।

রিটার্নিং অফিসার ভোটারের আবেদন প্রাপ্তির পর, অনতিবিলম্বে ওই ভোটারের নিকট ডাকযোগে একটি ব্যালট পেপার এবং একটি খাম প্রেরণ করবেন, যে খামের উপর তারিখ প্রদর্শন করত সার্টিফিকেট অব পোস্টিং এর একটি ফরম থাকিবে, যা ভোটারকর্তৃক ডাকে প্রদানের সময় ডাকঘরের উপযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তৃক পূরণ করা হবে।

কোনো ভোটার ডাকযোগে ব্যালটে ভোট প্রদানের জন্য তার ব্যালট পেপার প্রাপ্তির পর, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, তার ভোট রেকর্ড করার পর ব্যালট পেপারটি তার কাছে প্রেরিত খামে ন্যূনতম বিলম্বের মধ্যে রিটার্নিং অফিসারের নিকট ডাকযোগে প্রেরণ করবেন।

কেন্দ্রে গিয়ে ভোটদানে মার্কিং সিল ব্যবহার করতে হলেও পোস্টার ব্যালট পেপারে টিক (√) চিহ্ন দিতে হবে। এক্ষেত্রে নির্দেশনা অনুসরণ করে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে ব্যালট পেপারটি নির্ধারিত খামে রাখতে হবে।

দেশে বর্তমানে ভোটার সংখ্যা ১১ কোটি ৯০ লাখ ৬১ হাজারের মতো। আর প্রবাসে দুই কোটির মতো বাংলাদেশি অবস্থান কর। এদের অনেকই ভোটার, কিন্তু ভোটদান থেকে বিরত থাকেন। এবার বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারের দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ইসি কর্মকর্তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

প্রবাসীদের ভোটদানে উৎসাহী করতে চায় ইসি

আপডেট সময় : ০৫:৫৪:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ নভেম্বর ২০২৩

দেশের বাইরে একটি বিরাট সংখ্যক ভোটার অবস্থান করলেও তারা প্রতি সংসদ নির্বাচনেই ভোটদান কার্যক্রমের বাইরেই থেকে যায়। তবে এবার তাদেরকে ভোটদানে উৎসাহী করতে চেষ্টা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসকে কাজে লাগাতে চায় নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটি।

বুধবার (০১ নভেম্বর) আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম সাংবাদিকদের এমন তথ্য জানিয়েছেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংক, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ, অর্থ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের (সমন্বয় ও সংস্কার) ২৯ জন কর্মকর্তা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া অন্য নির্বাচন কমিশনার এবং ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও এতে উপস্থিত ছিলেন।

মো. জাহাংগীর আলম জানান, আইনের আলোকে পোস্টাল ব্যালটে শুধু এবার নয়, সব সময় ভোট দেওয়ার সুযোগ ছিল। এবারও ভোট দিতে পারবেন। এই ব্যাপারে আইনের বাধ্যবাধকতাও রয়েছে- কমিশন এই বার্তাটি সংশ্লিষ্টদের দিয়েছে।

তিনি বলেন, বিদেশে যে বাংলাদেশি মিশনগুলো রয়েছে তার মাধ্যমে নোটিশ আকারে যেন দেওয়া হয়, এজন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। প্রবাসে বাংলাদেশি যারা দেশের ভোটার তালিকাভূক্ত নাগরিক রয়েছে, তারা যদি ভোট দিতে উৎসাহিত হয়, কী পদ্ধতিতে ভোট দেবে সে বার্তাটা যেন জানিয়ে দেওয়া হয়।

গণপ্রতিনিধিত্ব অ্যাক্ট অনুযায়ী, নির্বাচনি দায়িত্বে নিয়োজিত ভোটার, প্রবাসী বাংলাদেশি ভোটার, সরকারি চাকরিজীবী যিনি চাকরিসূত্রে নিজ এলাকার বাইরে বাস করেন ও কারাবন্দিরা পোস্টাল ব্যালটে ভোটের আবেদন করতে পারেন।

আইনে যা আছে:

গণপ্রতিনিধিত্ব অ্যাক্টের ২৭ দফায় বলা হয়েছে, নির্বাচনে তফসিল প্রকাশ হওয়ার তারিখ থেকে পনেরো দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যে এলাকার ভোটার সেই নির্বাচনি এলাকার রিটার্নিং অফিসারের কাছে ডাকযোগে ব্যালটে ভোট প্রদানের উদ্দেশ্যে একটি ব্যালট পেপারের জন্য আবেদন করবেন এবং অনুরূপ প্রত্যেক আবেদনে ভোটারের নাম, ঠিকানা এবং ভোটার তালিকায় তার ক্রমিক নম্বর সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকবে।

রিটার্নিং অফিসার ভোটারের আবেদন প্রাপ্তির পর, অনতিবিলম্বে ওই ভোটারের নিকট ডাকযোগে একটি ব্যালট পেপার এবং একটি খাম প্রেরণ করবেন, যে খামের উপর তারিখ প্রদর্শন করত সার্টিফিকেট অব পোস্টিং এর একটি ফরম থাকিবে, যা ভোটারকর্তৃক ডাকে প্রদানের সময় ডাকঘরের উপযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তৃক পূরণ করা হবে।

কোনো ভোটার ডাকযোগে ব্যালটে ভোট প্রদানের জন্য তার ব্যালট পেপার প্রাপ্তির পর, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, তার ভোট রেকর্ড করার পর ব্যালট পেপারটি তার কাছে প্রেরিত খামে ন্যূনতম বিলম্বের মধ্যে রিটার্নিং অফিসারের নিকট ডাকযোগে প্রেরণ করবেন।

কেন্দ্রে গিয়ে ভোটদানে মার্কিং সিল ব্যবহার করতে হলেও পোস্টার ব্যালট পেপারে টিক (√) চিহ্ন দিতে হবে। এক্ষেত্রে নির্দেশনা অনুসরণ করে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে ব্যালট পেপারটি নির্ধারিত খামে রাখতে হবে।

দেশে বর্তমানে ভোটার সংখ্যা ১১ কোটি ৯০ লাখ ৬১ হাজারের মতো। আর প্রবাসে দুই কোটির মতো বাংলাদেশি অবস্থান কর। এদের অনেকই ভোটার, কিন্তু ভোটদান থেকে বিরত থাকেন। এবার বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারের দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ইসি কর্মকর্তারা।