থাইল্যান্ডে যেতে লাগবে না করোনা টেস্ট-কোয়ারেন্টাইন

  • আপডেট সময় : ০৩:৫৫:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০২২
  • / 322
প্রবাসী কণ্ঠ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বাংলাদেশি পর্যটকদের জন্য নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে থাইল্যান্ড। করোনার প্রতিরোধকারী টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেওয়া থাকলে দেশটিতে প্রবেশের পর করোনা টেস্ট করতে হবে না। যাত্রীদের থাকতে হবে না কোয়ারেন্টাইনে।

নতুন এ সিদ্ধান্ত আগামী ১ মে থেকে কার্যকর করবে থাইল্যান্ড। এক চিঠির মাধ্যমে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সকে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটি।

নতুন নির্দেশনায় থাইল্যান্ড জানায়, টিকা নেওয়া থাকলে বাংলাদেশি যাত্রীদের থাইল্যান্ড যাওয়ার আগে কোনো আগাম করোনা টেস্ট করতে হবে না। পৌঁছানোর পরও কোনো টেস্ট বা কোয়ারেন্টাইন নেই। সেক্ষেত্রে বিমানবন্দরে টিকা সনদের মূল কপি ও ফটোকপি দেখাতে হবে।

তবে যারা টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেননি, তাদের আগের মতোই থাইল্যান্ড পৌঁছানোর পর প্রথম ও পঞ্চম দিন আরটি পিসিআর টেস্ট করাতে হবে।

আগে থাইল্যান্ডগামী যাত্রীদের ২০ হাজার ডলার কাভারেজসহ হেলথ ইনস্যুরেন্সের প্রয়োজন হতো। বর্তমানে এই কাভারেজের পরিমাণ কমিয়ে ১০ হাজার ডলারে আনা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

থাইল্যান্ডে যেতে লাগবে না করোনা টেস্ট-কোয়ারেন্টাইন

আপডেট সময় : ০৩:৫৫:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০২২

বাংলাদেশি পর্যটকদের জন্য নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে থাইল্যান্ড। করোনার প্রতিরোধকারী টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেওয়া থাকলে দেশটিতে প্রবেশের পর করোনা টেস্ট করতে হবে না। যাত্রীদের থাকতে হবে না কোয়ারেন্টাইনে।

নতুন এ সিদ্ধান্ত আগামী ১ মে থেকে কার্যকর করবে থাইল্যান্ড। এক চিঠির মাধ্যমে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সকে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটি।

নতুন নির্দেশনায় থাইল্যান্ড জানায়, টিকা নেওয়া থাকলে বাংলাদেশি যাত্রীদের থাইল্যান্ড যাওয়ার আগে কোনো আগাম করোনা টেস্ট করতে হবে না। পৌঁছানোর পরও কোনো টেস্ট বা কোয়ারেন্টাইন নেই। সেক্ষেত্রে বিমানবন্দরে টিকা সনদের মূল কপি ও ফটোকপি দেখাতে হবে।

তবে যারা টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেননি, তাদের আগের মতোই থাইল্যান্ড পৌঁছানোর পর প্রথম ও পঞ্চম দিন আরটি পিসিআর টেস্ট করাতে হবে।

আগে থাইল্যান্ডগামী যাত্রীদের ২০ হাজার ডলার কাভারেজসহ হেলথ ইনস্যুরেন্সের প্রয়োজন হতো। বর্তমানে এই কাভারেজের পরিমাণ কমিয়ে ১০ হাজার ডলারে আনা হয়েছে।