শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন

চীনে ফ্লাইট চালাবে ইউএস-বাংলা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চলমান ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ দেশে আন্তর্জাতিক শিডিউল ফ্লাইট চলাচল বন্ধ। তবে জরুরি কাজে নিয়োজিত যাত্রীদের প্রয়োজনের কথা বিবেচনায় রেখে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সকে চীনের গুয়াঞ্জু রুটে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি  দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

জানা গেছে, ঢাকা-চীন রুটে ফ্লাইটের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে বেবিচক চীনের অনুমোদিত গন্তব্যে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সকে ফ্লাইট চালানোর অনুমতি দিয়েছে। তবে ফ্লাইট পরিচালনার জন্য সবাইকে সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

সম্প্রতি এ বিষয়ে আলোচনা করতে বেবিচক একটি সভা করে। এতে সভাপতিত্ব করেন বেবিচকের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান। সেখানে পদ্মা সেতুর রেল প্রকল্পসহ দেশে চলমান বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য চীনা নাগরিকদের নিয়মিত বাংলাদেশে আসা-যাওয়ার বিষয়টি উঠে আসে। এ কারণে অনেকেই এ ফ্লাইটটি খোলা রাখার আবেদন করেন। তাই বেবিচক চীনে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে।

তবে ফ্লাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে কিছু শর্ত দেওয়া হয়েছে। বেবিচক জানিয়েছে, চীন থেকে আসা প্রত্যেককে সরকার নির্ধারিত হোটেল বা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিজ খরচে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

ঢাকা থেকে চীন যাওয়ার সময় মাঝারি আকারের এয়ারক্রাফটে সক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রী পরিবহন করা যাবে। তবে শেষের সারি ফাঁকা রাখতে হবে। বড় আকারের এয়ারক্রাফটে (মডেল ভেদে) সর্বোচ্চ ২৮০-৩২০ জন যাত্রী বহন করা যাবে। চীন থেকে ঢাকায় ফেরার সময় মাঝারি আকারের এয়ারক্রাফটে সর্বোচ্চ ১০০ জন এবং বড় আকারের ফ্লাইটে সর্বোচ্চ ১৫০ জন যাত্রী বহন করা যাবে।

প্রতিটি ফ্লাইটের ইকোনমি ক্লাসের ১টি সারি ও বিজনেস ক্লাসের একটি সিট ফাঁকা রাখতে বলা হয়েছে। ফ্লাইটে কোনো যাত্রীর করোনা সন্দেহ হলে তাকে ওই সিটে রাখার নির্দেশনা দিয়েছে বেবিচক।

এদিকে গত ১৭ এপ্রিল থেকে দুবাই, মাস্কাট, দোহা ও সিঙ্গাপুরে ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা। স্বাস্থ্য সতর্কতার অংশ হিসেবে সব ফ্লাইট ঢাকা থেকে পরিচালিত হচ্ছে। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স সব নির্দেশনা মেনে সপ্তাহে ৯টি ফ্লাইট ঢাকা থেকে দুবাই, ৭টি ফ্লাইট ঢাকা থেকে মাস্কাট, ৪টি ফ্লাইট ঢাকা থেকে দোহা ও একটি করে ফ্লাইট ঢাকা থেকে সিঙ্গাপুরে পরিচালনা করছে।

সরকারের নির্দেশনায় সব আন্তর্জাতিক রুটের যাত্রীদের ভ্রমণের ৭২ ঘণ্টা আগে কোভিড-১৯ এর নেগেটিভ সার্টিফিকেট সংগ্রহ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গন্তব্য থেকে যেসব যাত্রী দেশে আসবেন প্রত্যেককেই সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কিংবা হোটেলে কোয়ারেন্টাইন থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। যাত্রীদের এসব মেনে ফ্লাইটে ওঠার নির্দেশনা দিয়েছে এয়ারলাইন্সটি।

বিশেষ ফ্লাইট সংক্রান্ত যেকোনো তথ্যের জন্য ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের সেলস্ অফিস, নিকটস্থ ট্রাভেল এজেন্সি, ০১৭৭৭৭৭৭৮০০-৮০৬ অথবা ১৩৬০৫ নম্বরে যোগাযোগের জন্য অনুরোধ করেছে তারা।

গত ১৫ এপ্রিল রাতে এক ভার্চুয়াল সভায় এয়ারলাইন্সগুলোকে মধ্যপ্রাচ্যের ৪ দেশ ও সিঙ্গাপুরে সপ্তাহে ১০০-এর বেশি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয় বেবিচক।

২০ এপ্রিল ২০২১, ২০টা ৫৫ মিনিট

সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন

© All rights reserved © Zahir-01743535311