সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১২:১২ অপরাহ্ন

জনশক্তি খাত সিন্ডিকেটমুক্ত করার দাবি সাধারন ব্যবসায়ীদের

 

প্রবাসী কণ্ঠ :

 

মালয়েশিয়া, সৌদিআরবসহ সকল দেশের জনশক্তি প্রেরণ খাতকে সিন্ডিকেটমুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন সাধারন রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকরা। দাবি আদায়ে মানববন্ধনসহ কিছু কর্মসুচি ঘোষণা করেছেন তারা। কর্মসুচির মধ্যে রয়েছে-প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ ও স্মারকলিপি পেশ, সংবাদ সম্মেলন।

সোমবার রাতে মগবাজার কনভেনশন সেন্টারে ‘বায়রা সিন্ডিকেট নির্মুল ঐক্যজোট (বিএসএনও)’ আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এসব দাবি ও কর্মসুচি ঘোষণা করা হয়। ‘মালয়েশিয়াসহ সকল দেশের জনশক্তি প্রেরণ সেক্টরে সকল প্রকার সিন্ডিকেট নির্মুলের জন্য এবং নিজ নিজ ব্যবসায়িক অধিকার আদায়ের লক্ষে বায়রা পরিবারের সহযোগী সংগঠনের ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিন্ডিকেটকারীদের বিরুদ্ধে’ এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে এজেন্সি মালিকরা।

প্রতিবাদ সমাবেশে বায়রার সহযোগী ৯ টি সংগঠনের নেতাকর্মীরা যোগ দেন। বায়রার সাবেক সহ-সভাপতি আলী হায়দার চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য ও বায়রার সাবেক সভাপতি বেনজির আহমদ। প্রধান বক্তা ছিলেন, বায়রার সাবেক সভাপতি আবুল বাশার। আরো বক্তব্য রাখেন, একেএম মোয়াজ্জেম হোসেন, ফখরুল ইসলাম, টিপু সুলতান ও আরিফুর রহমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে জনশক্তি প্রেরণ দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকরা এমনিতেই চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সম্প্রতি মালয়েশিয়া, সৌদি আরব সহ কিছু দেশের বাজার চালু হওয়া নিয়ে আশার আলো দেখছেন ব্যবসায়ীরা। অথচ এরইমধ্যে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠাতে একটি সিন্ডিকেট করার অপচেষ্টা চলছে। সরকারকে ভুল বুঝিয়ে দেশ ও বায়রার সাধারণ সদস্যদের স্বার্থবিরোধী এই সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছে কয়েকজন। এই সিন্ডিকেট দেশ ও প্রবাসগামী শ্রমিকদের ক্ষতিকর। কোনভাবেই এই সিন্ডিকেট করতে দেওয়া হবে না।

ব্যবসায়ীরা বলেন, মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠানোর সিন্ডিকেট আগেও হয়েছিল, নতুন করে সিন্ডিকেট করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এই সিন্ডিকেট করতে দুই দেশের সরকারকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। অথচ সরকার নির্ধারিত হারে কর্মী প্রেরণে যেখানে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা খরচ হবে সেখানে সিন্ডিকেটমুক্ত ও বায়রার সব সদস্যের জন্য উন্মুক্ত হলে মাত্র ৬০ হাজারেও কর্মী পাঠানো সম্ভব। দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা এই জনশক্তি প্রেরণ খাতকে রক্ষার জন্য সরকারের জরুরি পদক্ষেপ কামনা করেন তারা।

সমাবেশ থেকে মানবপাচার প্রতিরোধ সংক্রান্ত আইনকে বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসী আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক উল্লেখ করে অবিলম্বে মানবপাচার আইন সংশোধনের দাবি করেন এজেন্সি মালিকরা। এছাড়া বায়রার আগামী নির্বাচনে জনশক্তি প্রেরণ সেক্টরে সিন্ডিকেটকারীদের প্রত্যাখ্যান করার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তারা।

সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন

© All rights reserved © Zahir-01743535311