ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আধুনিক নগরী হিসেবে গড়তে চাইঃ তাবিথ আউয়াল

0

ঢাকা : এক যুগ পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন। প্রতীক বরাদ্দের পর জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির সমর্থন পেয়েছেন দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল। শুধু ব্যবসায়ী নেতার ছেলেই তার একমাত্র পরিচয় নয়, তার নিজেরও রয়েছে বর্ণাঢ্য শিক্ষা, ব্যবসায় ও রাজনৈতিক ক্যারিয়ার।

ঢাকার গুলশানে বেড়ে ওঠা তাবিথ স্থানীয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল থেকে ‘ও’ লেভেল (অর্ডিনারি লেভেল) ও ‘এ’ লেভেল (অ্যাডভান্স লেভেল) শেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। পরে সেখানকার বিখ্যাত জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি থেকে ব্যবসায় প্রশাসনে (বিবিএ) স্নাতক এবং তথ্য ব্যবস্থাপনা বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর (এমএসসি) ডিগ্রি অর্জন করেন। পড়াশোনা শেষে গত তিন বছর ধরে বাবার মালিকানাধীন মাল্টিমোড গ্রুপের উপপ্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ডিসিইও) হিসেবে কাজ করছেন। ১৭টি প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায় পরিচালনা করে সবগুলোকে শতভাগ লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছেন। ব্যবসায়ের বাইরেও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) নির্বাচিত সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা, ব্যবসায়িক সফলতা এবং পারিবারিক রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আধুনিক নগরী হিসেবে গড়তে চান তিনি। শুক্রবার দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা জানান।

প্রশ্ন : মেয়র নির্বাচিত হলে নগরীকে কিভাবে সাজাবেন?
তাবিথ : বর্তমানে সিটি করপোরেশন নানান সমস্যায় জর্জরিত। প্রতিদিন কয়েক হাজার টন বর্জ্য রাস্তায় খোলা জায়গায় ফেলা হচ্ছে। রাজধানীর ড্রেনেজ ব্যবস্থাও অপরিকল্পিত। পরিবেশদূষণের ভয়াবহতা প্রভাব ফেলছে ঢাকাবাসীর জীবনযাত্রায়। এখানে মানুষের নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। পরিষ্কার, বর্জ্যমুক্ত ঢাকা চায় নগরবাসী। রাজধানীর অনেক জায়গায় গ্যাস, বিদ্যুৎ সঙ্কট, ঠিকমতো পানি পাওয়া যায় না। রাস্তাঘাট ভালো নেই, নগরবাসী নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। একজন মেয়র এসব সমস্যার সমাধান করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন। বিদেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতায় উন্নত দেশের রাজধানীর মতো নিজের দেশের রাজধানীকেও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আধুনিক নগরী হিসেবে গড়তে চাই।

প্রশ্ন : এই নির্বাচন কমিশন (ইসি) নিরপেক্ষ নির্বাচনে কতটুকু আন্তরিক?
তাবিথ : নির্বাচন কমিশন আশ্বাস দিয়েছেন। আগের চেয়ে ওনাদের আচরণে পরিবর্তন আসবে। আমরা আশাবাদী, আশা নিয়েই রয়েছি। তারা যখন একটা আশ্বাস দিয়েছেন সেহেতু তাদের একটা সুযোগ দেয়া উচিত। বাকিটা তাদের হাতে। আমি আশা করি, নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষভাবে তাদের আইনগত দায়িত্ব পালন করবে এবং শুধু প্রচারণাকালীন নয়, ২৮ এপ্রিল নির্বাচনের দিনও সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ এবং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্পন্নের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

প্রশ্ন : নতুন প্রজন্মের জন্য আপনার প্রতিশ্রুতি কী?
তাবিথ : নতুন বা তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি হিসেবে আমি মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি। যেহেতু আমি তাদের চাওয়া পাওয়া উপলদ্ধি করি, সেহেতু স্বাস্থ্যকর, সুন্দর ও উন্নত দেশের মতো বাসযোগ্য নগর গড়তে চাই। যেখানে ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার, চলাফেরার, খেলাধুলার সুব্যবস্থা থাকবে।

প্রশ্ন : নাগরিক সমস্যা সমাধানে কতটুকু সফল হবেন বলে মনে করেন?
তাবিথ : যখন একটা গোষ্ঠী বা সংস্থা বোঝার চেষ্টা করবে যে ঢাকাবাসীর সমস্যা কী আর ঢাকাবাসীর চাহিদা কীÑ তখন অবশ্যই সমাধান করা সম্ভব। আমি মনে করি সফল হব সমস্যাগুলো সমাধান করতে। বেশির ভাগ জিনিস পরিচালনার ব্যাপার। গত ২০০৮ থেকে জনপ্রতিনিধি ছিল না ঢাকা সিটিতে। যারা প্রশাসন থেকে আসত তারা অল্প মেয়াদের জন্য আসত। ওনাদের দায়বদ্ধতা থাকত না জনগণের জন্য কিছু করার বা জনগণের কথাগুলো শোনার। আমরা ইতোমধ্যে ঢাকাবাসীর সমস্যা চিহ্নিত করতে পেরেছি। তাই আশা করি, নির্বাচিত হলে তা সুষ্ঠু ও পরিকল্পিতভাবে সমাধান করতে পারব।

প্রশ্ন : নতুন প্রার্থী হিসেবে সাড়া পাচ্ছেন কেমন?
তাবিথ : আমি দল ও দলের বাইরে থেকে প্রত্যাশার চেয়েও বেশি সাড়া পাচ্ছি। আমরা যাত্রা শুরু করেছি খুব দেরিতে কিন্তু অতি দ্রুত সমর্থন পেয়ে যাচ্ছি সবার কাছ থেকে। আমি রাজনৈতিক (বিএনপি) মহলের সবার সাথে দেখা করব। যখন যে এলাকাতে যার সাথে পারি। বিএনপির কে কোন পোস্টে সেটা দেখার দরকার নেই। অনেক সিনিয়র নেতা আছেন, বুদ্ধিজীবী আছেন; যারা আমার মুরব্বি, আমি সবার সাথেই চেষ্টা করব ব্যক্তিগতভাবে দেখা করতে ও তাদের পরামর্শ নিতে।

প্রশ্ন : জয়ের ব্যাপারে আপনি কতটুকু আশাবাদী?
তাবিথ : আমি জয়ের ব্যাপারে বেশ আশাবাদী। এক দিকে আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের প্লাটফর্ম আগে থেকেই ছিল। তার পরে ২০ দলীয় জোটের একটা সমর্থন এল। এ রকম সমর্থন পাওয়ার পর জনগণের সমর্থন বেড়ে যাচ্ছে। আমি আশাবাদী, যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, যদি জনগণ ভোট দেয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে পারে, তবে অবশ্যই জয়ের একটা বড় সুযোগ থাকবে। সূত্র : এ ওয়ান