২৬ দেশের শ্রম উইং কর্মকর্তাদের ৫ দিনের সম্মেলন শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিদেশে কর্মসংস্থাণ তৈরী এবং রেমিটেন্স প্রেরণে প্রবাসী শ্রমিকরাই সবচেয়ে বেশী অবদান রাখছে। তাই বিদেশে বাংলাদেশ মিশনে (শ্রম উইং) যেসব শ্রমিক দুর দুরান্ত থেকে প্রতিনিয়ত সেবা নিতে যাচ্ছে, তারা যেনো সেবা পেয়ে হাসিমুখে ফিরে যেতে পারে, সেই ব্যাপারে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। একই সাথে তাদের সময় এবং খরচের বিষয়েও সজাগ থাকবে হবে।

আজ রোববার (৪ ফেব্রুয়ারী) ঢাকার সিরডাপ মিলনায়তনের আন্তর্জাতিক সম্মেলন কক্ষে “শ্রম কল্যাণ সম্মেলন-২০১৮” এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি এসব কথা বলেন।

সম্মেলনে ২৬ দেশে নিযুক্ত বাংলাদেশ দুতাবাস-হাইকমিশনের প্রথম এবং দ্বিতীয় (শ্রম) সচিবদের উদ্দেশ্য প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব অভিবাসন ও শরনার্থীদের সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এজন্য তিনি (মাদার অব হিউম্যানিটি) বিশ্ব স্বীকৃতিও পেয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য নেতৃত্ব ও দিক নিদ্দের্শনায় সৌদি আরব, ওমান, কাতার, বাহরাইন, মালয়েশিয়ায় ব্যাপক কর্মী পাঠাতে সক্ষম হয়েছি। আশা করছি সংযুক্ত আরব আমিরাতেও কর্মী পাঠাতে সক্ষম হবো।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি’র সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. আমিনুল ইসলাম, ওয়েজ আর্নার্স কল্যান বোর্ডের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ জুলহাস এনডিসি, জনশক্তি কর্মসংস্থাণ ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. সেলিম রেজা এবং বোয়েসেল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মরণ কুমার চক্রবর্তী।

সভাপতির বক্তব্য সচিব নমিতা হালদার বলেন, শ্রম কল্যাণ উইংয়ের কর্মকর্তাদের বার্ষিক সম্মেলন নিয়মিত একটি কার্যক্রম। তবে এবারের সম্মেলনটি ব্যতিক্রমি। আপনারা জানেন, মন্ত্রনালয়ের প্রধান উদ্দেশ্য ২টি। এক, বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ তৈরী করা এবং দুই প্রবাসী বাংলাদেশী কর্মীদের কল্যাণ নিশ্চিত করা। এলক্ষ্যেই এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ঠিক করা হয়েছে “টেকসই উন্নয়নের জন্য অভিবাসী কল্যাণ”।

তিনি বলেন, বিশ্বের শ্রমবাজারে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন ঘটছে। কিছু কিছু শ্রমবাজার যেমন সংকুচিত হচ্ছে আবার নতুন নতুন শ্রমবাজার সম্প্রসারিত হচ্ছে। এসকল পরিস্থিতিতে শ্রম কল্যাণ উইংয়ের কর্মকর্তাদের কৌশল নির্ধারণে ধারনা প্রদান করা এ সম্মেলনের অন্যতম উদ্দেশ্য।

উল্লেখ্য ৪ থেকে ৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত ৫ দিনব্যাপি শ্রম কল্যাণ সম্মেলন ২০১৮ তে ২৯টি শ্রম উইংংের ৪৪ জন কর্মকর্তা অংশগ্রহন করছেন।

রোববার শুরু হওয়া দিনের প্রথম পর্বে “লেবার ডিপ্লোমেসি ইন বাংলাদেশ ফরেন পলিসি” নিয়ে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তজার্তিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। সভাপতিত্ব করেন শিল্প মন্ত্রনালয়ের সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। এতে উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার। সেমিনারে অংশ নেয়া (শ্রম) প্রথম ও দ্বিতীয় সচিবদের মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া, সৌদি আরব (রিয়াদ, জেদ্দা) মালয়েশিয়া, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সিঙ্গাপুরসহ কয়েকটি দেশের কর্মকর্তারা রেমিটেন্সসহ বর্তমান সময়ে শ্রমবাজার সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করে পরবর্তী করনীয় কি হতে পারে সে সর্ম্পকে জানতে চান।