জাপানে ইন্টার্ন নিয়োগে চুক্তি বাংলাদেশীরা ৩-৫ বছর কাজের সুযোগ পাবে

tokyo city-2

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে টেকনিক্যাল ইন্টার্ণ নিয়োগে সহযোগিতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। সোমবার বিকেলে (স্থানীয় সময়) জাপানের টোকিওতে স্বাক্ষরিত হয় বলে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম এর পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এউপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্র্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি বলেন, এই স্মারক জাপানের ৭৭টি পেশার ১৩৭ টি কাজের জন্য বাংলাদেশ থেকে দক্ষ ও আধা-দক্ষ টেকনিক্যাল ইন্টার্নদের জাপানি কাজে প্রশিক্ষণ ও জ্ঞানার্জন করতে পারবে। তিনি বলেন, তারা জাপানে তিন থেকে পাঁচ বছর কাজ করার সুযোগ পাবে। কাজ শেষে দেশে ফিরে তারা জাপানি নানা প্রযুক্তি ও জ্ঞানকে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারবেন।

বাংলাদেশের পক্ষে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি এবং জাপানের হেলথ, লেবার ও ওয়েলফেয়ার মন্ত্রণালয়ের পলিসি-সমন্বয় বিষয়ক ভাইস মিনিস্টার জিনিচি মিয়ানো, বিচার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক ভাইস মিনিস্টার হিরোমু কুরোকাওয়া এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কন্সুলার বিষয়ক ব্যুরোর মহা-পরিচালক কোইচি আইবোশি সহযোগিতা স্মারকে স্বাক্ষর করেছেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়। অনুষ্ঠানে জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ও জাপান সরকারের উচ্চ-পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। টেকনিক্যাল ইন্টার্ন নিয়োগে সপ্তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ জাপানের সাথে এ স্মারক সই করেছে।

ড. নমিতা হালদার আরো বলেন, বাংলাদেশ সরকার যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে এই বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছে। কন্সট্রাকশন, মেনুফ্যাকচারিং, গার্মেন্টস, কৃষি, ফুড প্রসেসিং এবং কেয়ার গিভিং খাতে জাপানের জনবলের অভাব রয়েছে। যেহেতু বাংলাদেশে দক্ষ ও আধা-দক্ষ কর্মীর প্রাচুর্যতা রয়েছে তাই এই সুযোগকে আমরা গ্রহন করে কাজে লাগাতে পারি।
সহযোগিতা স্মারক স্বাক্ষর ছাড়াও দু’পক্ষের মধ্যে দ্বিপাক্ষীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে মানবসম্পদ উন্নয়নে দু’দেশের পারস্পারিক সহযোগিতার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়য়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি জাপানের অর্গানাইজেশন ফর টেকনিক্যাল ইন্টার্ন ট্রেনিং (ও.টি.আই.টি) এর প্রেডিডেন্ট ইয়োসিহো সুজুকি’র সাথেও সাক্ষাৎ করেন। তারা টেকনিক্যাল ইন্টার্ণ ট্রেনিং কার্যক্রম সহজ করা এবং বাংলাদেশের মানবসম্পদ উন্নয়ন নিয়ে মত বিনিময় করেন।

৪ দিনের সফরে ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার জাপানের টোকিওতে অবস্থান করছেন। আগামী ৩১ জানুয়ারি তিনি দেশে ফিরবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।