মালদ্বীপ রাষ্ট্রদূতকে জয়েন্ট কমিটি পুন:গঠনে সচিবের অনুরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর ইস্কাটনের প্রবাসী কল্যাণ ভবনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি’র সাথে বাংলাদেশে নিযুক্ত মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত আইসাথ শান সাকির সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হয়েছেন। সাক্ষাতে মালদ্বীপে অবস্থানরত বৈধ ও অবৈধ বাংলাদেশী কর্মী এবং নতুন করে আরো কর্মী নেয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়।

এসময় ভারপ্রাপ্ত সচিব বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যকার সমঝোতা স্মারকটি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় রাষ্ট্রদূতের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং জয়েন্ট কমিটি পুনঃগঠনের জন্য তাঁর মাধ্যমে মালদ্বীপ সরকারের কাছে অনুরোধ জানান।
আজ (১৬ জানুয়ারী) মঙ্গলবার প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলমের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে রাষ্ট্রদূতকে সচিব বলেছেন, ২০১৭ সালে ১৬ টি দেশের অভিবাসন ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে মালদ্বীপ একটি। টেকসই উন্নয়নে অভিষ্ট লক্ষমাত্রা ১০.৭ অর্জনে এ মন্ত্রণালয় বিদেশগামী কর্মীদের অভিবাসন ব্যয় সর্বনি¤েœ নামিয়ে আনার লক্ষ্যে অভিবাসন ব্যয় নির্ধারণ করেছে। একই সাথে রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে মালদ্বীপে কর্মরত সকল অনথিভূক্ত কর্মীদের বৈধকরণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে অনুরোধ জানান।

বৈঠকে মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত আইসাথ শান সাকির বলেন, বাংলাদেশী কর্মীরা কর্মঠ, সৎ ও নিষ্ঠাবান। মালদ্বীপের জনগণ বাংলাদেশী কর্মীদের পছন্দ করেন। তিনি আরও বলেন, মালদ্বীপের বেশিরভাগ বিদেশী কর্মী বাংলাদেশের। তার সরকার বৈধভাবে বিদেশী কর্মীদের নেওয়ার ব্যাপারে কাজ করছে। এর ফলে বাংলাদেশী কর্মীরা উপকৃত হবে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও অর্থ) মোঃ আমিনুল ইসলাম, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা, বাংলাদেশ ওভারসীজ এমপ্লয়মেন্ট এন্ড সার্ভিসেস লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মরণ কুমার চক্রবর্তী এবং মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (গবেষণা, আইন ও নীতিমালা) মোঃ বদরুল আরেফিন ও যুগ্মসচিব (কর্মসংস্থান) মোঃ মোশাররফ হোসেন।