রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব অথবা আলাদা রাষ্ট্র দিন: মাহাথির

3

 

বিদেশ ডেস্ক
রাখাইনে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব কিংবা আলাদা রাষ্ট্র গঠনের সুযোগ দিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ।

তুরস্কে সফররত মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী দেশটির সংবাদমাধ্যম আনাদোলুকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ আহ্বান জানিয়েছেন মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষের কাছে। রোববার (২৮ জুলাই) আন্তজার্তিক সংবাদ সংস্থা এমন তথ্য জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়, চারদিনের সরকারি সফরে বর্তমানে তুরস্কে রয়েছেন ড. মাহাথির মোহাম্মদ। সেখানে আঙ্কারাভিত্তিক ওই বার্তাসংস্থাকে তিনি বলেন, মিয়ানমারের উচিৎ রোহিঙ্গাদের নিজেদের নাগরিক হিসেবে বিবেচনা করা অথবা তাদের আলাদা একটি রাষ্ট্র গঠনের সুযোগ দেওয়া।

মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, অন্য কোনো দেশের অভ্যন্তরীন বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার ইচ্ছে মালয়েশিয়ার নেই। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ওপর যে গণহত্যা চালানো হয়েছে, এতে মালয়েশিয়া চুপ থাকতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, এক সময় মিয়ানমারও অনেকগুলো আলাদা রাজ্য নিয়ে গঠিত হয়েছিল। তবে পরবর্তীতে ব্রিটিশরা মিয়ানমারকে একটি রাজ্যের আওতায় এনে শাসন করেছিল। ফলে বর্তমানে এখানে এক রাজ্যের আওতায় বহু জাতির মানুষ রয়েছে।

‘এখন মিয়ানমারের উচিৎ বিভিন্ন জাতির এসব মানুষদের নাগরিকত্ব দেওয়া, অন্যথায় তাদের আলাদা রাজ্য গঠনের সুযোগ দেওয়া।’

অন্যদিকে চীনের উইঘুর মুসলিমদের নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মালয়েশিয়া সব সময়ই আলোচনা, আপস কিংবা আইনের মাধ্যমে এ ধরনের সংঘাতের সমাধান চায়।

‘আমাদের উচিৎ চীনকে বলা যে, উইঘুর মুসলিমদের নিজেদের নাগরিক হিসেবে ভাবুন। নিজেদের নাগরিকদের সঙ্গে যেমন আচরণ করবেন, তাদের সঙ্গেও তাই করুন। শুধুমাত্র ধর্ম কিংবা জাত আলাদা বলে তাদের সঙ্গে ভিন্ন আচরণ করা ঠিক নয়। কারণ যখন কেউ সহিংসতার পথ বেছে নেয়, তখন ভালো সমাধান পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য হয়ে যায়।’

২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বসবাসরত সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা নাগরিককে নির্যাতন-নিপীড়ন করে বের করে দিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। মিয়ানমারের এ কাজকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে জাতিসংঘ। এছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশই তাদের এ কাজের প্রতি নিন্দা জানিয়েছে। মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে এসব রোহিঙ্গারা বর্তমানে বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন।
সুত্র বাংলানিউজ২৪.কম