মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার নিয়ে আলোচনা করতে প্রতিমন্ত্রীর সপ্তাহব্যাপি সফর

9

প্রবাসী কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রায় ৮ মাস ধরে স্থগিত থাকা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলার বিষয়ে আলোচনা করতে আজ শনিবার প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ এর নেতৃত্বে ৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে। প্রতিনিধি দলটি সপ্তাহব্যাপি দেশটি সফর শে্েযষ আগামী ১৬ মে ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে।

প্রতিনিধি দলের অপর সদস্যরা হচ্ছেন জনশক্তি কর্মসংস্থাণ ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. সেলিম রেজা, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আহমদ মনিরুছ সালেহিন এবং একই মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব মো. মোহাম্মদ আবুল হোসেন।

গতকাল শুক্রবার রাতে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের সচিব রৌনক জাহান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মাননীয় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলের মালয়েশিয়া সফরে যাওয়ার কথা নিশ্চিত করে জানান, এই সফরের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মালয়েশিয়ার স্থগিত শ্রমবাজার যত দ্রুত সম্ভব আলোচনা করে খোলার ব্যবস্থা করা। এনিয়ে ওই দেশের শ্রমবাজার সংশ্লিষ্টদের সাথে প্রতিনিধি দলের একাধিক বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমাদের টার্গেট হচ্ছে মালয়েশিয়ার মার্কেটটি যে করে হউক ওপেন করা। আর কম অভিবাসন ব্যয়ে কিভাবে শ্রমিকরা যেতে পারবে তা নিশ্চিত করা। এবার যাতে জনশক্তি রফতানীর সাথে সম্পৃত্ত সবাই ব্যবসা করতে পারেন, সেটাও নিশ্চিত করা হবে।

এরআগে ৯ এপ্রিল প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব মো. আবেদ আলী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে প্রতিনিধি দলের সফরসুচীতে উল্লেখ রয়েছে, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থাণ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ এর নেতৃত্বে ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ১১ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত মালয়েশিয়া সফর করবেন। সফরের উদ্দেশ্য হচ্ছে “বাই লেটারার মিটিং টু ডিসকাস ওভারসীস এমপ্লয়মেন্ট, ওপেনিং অফ লেবার মার্কেট এন্ড বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স”।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়ার মাহাথির মোহাম্মদ সরকারর বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেয়া স্থগিত রাখার ঘোষনা দেয়। এরপর নতুন করে দুই দেশের মধ্যে শ্রমবাজার নতুনভাবে খোলা নিয়ে দুই দেশে একাধিক জয়েন্ট ওয়াকিৃং গ্রুপের ফলপ্রসু বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আর এসব বৈঠক সফল করতে দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম গুরুত্বপূর্ণ ভ’মিকা পালন করেন।

শুক্রবার রাতে মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে নাম না প্রকাশের শর্তে একজন কর্মকর্তা বলেন, এবারের বৈঠকের পর আমরা আশা করছি মালয়েশিয়ার স্থগিত শ্রমবাজার খুলে দেয়া হবে। আবারো শ্রমিক আসতে শুরু করবে এদেশে। সেভাবেই আমরা আলোচনার প্রস্তুতি নিয়েছি। তিনি বলেন, এবার মালয়েশিয়া সরকার র্সোসকান্ট্রি ভ’ক্ত দেশগুলো থেকে ইউনিফাইড সিস্টেমে কর্মী নিতে নতুন অনলাইন সিস্টেম চালু করতে যাচ্ছে।