মালয়েশিয়ার বিশেস দিনে ১০ মেরদেকা শিশুর জন্ম

6
(বাম থেকে ডান) এম ভিটিয়াহ, চিন হুই পেং, সান সান এনজি। নূর শাজরেন আরিফিন হাসপাতালে রাজা পারমাইসুরি বেনুন "মেরডেকা বাবিস"।
আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া:
মালয়েশিয়ায় ১০ মেরডেকা শিশুর জন্ম হয়েছে। শনিবার মালয়েশিয়ার ৬২ তম স্বাধীনতা দিবস অনুষ্টাননিয়ে ব্যস্ত। ঠিক তখনই “সায়াঙ্গি মালয়েশিয়াকু, মালয়েশিয়াা বেরশিহ” মালয়েশিয়া তাদের ভালোবাসা ও পরিচ্ছন্নের বার্তা নিয়ে এসেছে নবজাতক ১০ শিশু। দিবসটিতে ইপু রাজ্যের রাজা পারমাইসুরী বাইনুন হাসপাতালে আট মেয়ে এবং দুটি ছেলে জন্মগ্রহণ করেছে। জন্ম নেয়া শিশুদের দেয়া হয়েছে ”মারদেকা বেবিস।  জন্মের প্রথম দিকের মারদেকা শিশুটি সকাল ১২.১৩ এ ৩১ বছর বয়সী সান সান এনজি-তে ছিল। ২.৯ কেজি ওজনের বাচ্চা মেয়েটি স্বাভাবিক প্রসবের মধ্য দিয়ে মধ্যরাতের কিছুক্ষণ পরেই তার জন্ম হয়।  এনজি নামের একটি স্কুল ক্যান্টিন অপারেটর বলেছিলেন যে, বিশেষ বিশেষ দিনে তার দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম দিতে পেরে তিনি খুব আনন্দিত। “আমি শুক্রবার (৩০ আগস্ট) রাত ১০ টায় প্রশ্রবের বেথা অনুভব করি এবং প্রায় দুই ঘন্টা পরে আমার ছোট্ট রাজকন্যার জন্ম হয়।”আমরা তার নাম কুইন্সি পং রেখেছি,”। অল্প বয়সী মা নূর শাজরেন আরিফিন, ২০, বলেছেন যে জাতীয় দিবসে তার প্রথম সন্তানের জন্ম দেওয়ার পরে তিনি স্বস্তি এবং খুশি ছিলেন। তার মেয়ে নূর সায়স্য হেলেনা মোহাম্মদ শাহফ্রি, ৩.৩ কেজি ওজনের, সকাল ১১.২৫-এ জন্মগ্রহণ করে। “চিকিৎসকরা ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে আমার নির্ধারিত তারিখটি সেপ্টেম্বর হবে, তবে আমার ধারণা আমার এই শিশুটি এই বিশেষ দিনে বিশ্ব দেখার জন্য অপেক্ষা করতে পারে না।
“আমার স্বামী এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা প্রার্থনা করে আসছিলেন যে জাতীয় দিবসে শিশুর জন্ম হবে এবং তাদের প্রার্থনার উত্তর দেওয়া হয়েছে,” বলে তিনি যোগ করেন।
চিন হুই পেং ২৭, ক্যামেরন হাইল্যান্ডে অবস্থান করছেন, চিন জানিয়েছেন, তাঁর ৩.০৬ কেজি বাচ্চা মেয়েটির ৩ অক্টোবরে হওয়ার কথা ছিল। “তবে, ভোরে আমার পিঠে ভীষণ ব্যথা হতে শুরু করে এবং একটি অ্যাম্বুলেন্সে ক্যামেরন হাইল্যান্ডস থেকে এখানে হাসপাতালে আনা হয়েছিল। “আমার তৃতীয় সন্তানের একটি স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে জন্ম হয়েছে। “আমি সত্যিই জাতীয় দিবসে তার জন্ম করা আশা করিনি। তবুও আমি খুব খুশি এবং গর্বিত।
গৃহবধূ এম ভিতিয়াহ (৩০) সকাল সাড়ে ৮ টা ৪৫ মিনিটে তার পঞ্চম বাচ্চা ৩.৬৫ কেজি ওজনের প্রসব করেছেন। তিনি বলছিলেন “আমার প্রসব বেদনা শুরুর সাথেসাথে তাকে কুয়াল কংসার থেকে হাসপাতালে নিয়ে আসতে হয়েছে।
ভিতিয়াহ বলেছিলেন, “জাতীয় দিবসে আমার বাচ্চা মেয়েকে প্রসবের আগে আমি দু’দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম,” ভিটিয়া বলেছিলেন, তিনি আরও খুশি হন যে তার মেয়ে প্রতি বছর একটি বিশেষ দিনে জন্মদিন উদযাপন করবে। এদিকে, হাসপাতালের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ওমর তরমিজি আহমদ শাইবি জানিয়েছেন, বোর্ডটি নবজাতকের মায়েদের জন্য একটি মাইলফলক দিন। স্বাধীনতা দিবসের আনন্দের পাশাপাশি গোটা জাতি নবজাতকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন।