ভিসা থাকার পরও এক বাংলাদেশিকে শিকাগো থেকে ফেরত

1

প্রবাসী কণ্ঠ ডেস্ক

বিজনেস ভিসায় শিকাগো বিমানবন্দরে নামার পরপরই এক বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ।
মোহাম্মদ জাকির হোসেন নামের ৪৫ বছর বয়সের ওই ব্যক্তির বাড়ি বরিশাল। ২০১৯ সাল পর্যন্ত তার ভিসার মেয়াদ ছিল বলে স্বজনদের ভাষ্য।
শিকাগোর বাংলাদেশি কম্যুনিটির নেতা মো. শামসুল ইসলাম জানান, ক্যাথেপ্যাসিফিক এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে হংকং হয়ে ২৮ মার্চ শিকাগো পৌঁছান জাকির। বিমানবন্দরে নামার পর ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা তার সফরের উদ্দেশ্য জানতে চান। এর আগেও তিনি কয়েক দফা একই ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন। কিন্তু এবার তার উত্তরে সন্তুষ্ট না হয়ে ভিসা বাতিল করে তাকে আরেকটি ফ্লাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়।
শিকাগোতে বাংলাদেশের অনারারি কন্সাল জেনারেল মুনির চৌধুরী জানান, তিনি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
ও ইমিগ্রেশনের কাছে জাকিরকে ফেরত পাঠানোর কারণ জানতে চেয়েছিলেন।
তারা মুনিরকে বলেছেন, ভিসা থাকলেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে দিতে হবে- এমন বাধ্যবাধকতা নেই। সন্দেহ বা সংশয় তৈরি হলে কাউকে ফিরিয়ে দেয়ার পুরো অধিকার ইমিগ্রেশনের রয়েছে।
মুনির চৌধুরী বলেন, ‘জাকির হোসেনকে ফিরতি ফ্লাইটে উঠিয়ে দিতে তারা দুই ঘণ্টার বেশি সময় নেয়নি। আমি ইমিগ্রেশন অফিসারদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারার আগেই তাকে ফেরত পাঠানো হয়। তা না হলে আমি সর্বোচ্চ পর্যায়ে চেষ্টা চালাতে পারতাম।’
জাকিরের আত্মীয় জাবেদ আহমেদ থাকেন ফিলাডেলফিয়ায়। তিনি জানান, নিউইয়র্ক রাজ্যের একটি কলেজ থেকেই গ্র্যাজুয়েশন করেছেন জাকির। তারপর দেশে ফিরে ব্যবসা শুরু করেন।
দুই সন্তানের বাবা জাকির বেশ কয়েকবার বিজনেস ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া আসা করেছেন বলেও জানান জাবেদ।
জাকিরকে বিমানবন্দরে আটকে দেয়ার খবর পেয়ে ফিলাডেলফিয়া থেকে একজন আইনজীবী নিয়োগ করেছিলেন জাবেদ। সেই আইনজীবী বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও টেলিফোনে তারা কোনো তথ্য দেয়নি।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জাতীয় নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে ছয় দেশের নাগরিকদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। তবে ওই আদেশ কার্যকর হওয়ার আগেই হাওয়াইয়ের ফেডারেল আদালত ওই নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করে দেয়।
তার আগে জানুয়ারিতে ট্রাম্পের অভিবাসন নিষেধাজ্ঞার আরও একটি আদেশ আদালতে আটকে যায়।

সুত্র যায় যায় দিন