বিএনপির জন্যই জরুরি অবস্থা দরকার : ওবায়দুল কাদের

2
আজ শনিবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিতরণের সময় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি : ফোকাস বাংলা

ডেঙ্গুর প্রকোপে দেশে জরুরি অবস্থা জারি করা দরকার, বিএনপির এমন দাবির প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দেশের জন্য নয়, বিএনপির জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা দরকার।’

আজ শনিবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটের আনন্দ সিনেমা হলের সামনে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিতরণের সময় এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, “আজকে দল হিসেবে বিরোধী দলেরও দায়িত্ব আছে। পরিচ্ছন্নতা অভিযানে কোথাও তারা নেই। তারা কখনো বলে, ‘মহামারি ঘোষণা করো’, কখনো বলে, ‘জরুরি অবস্থা ঘোষণা করো’। জরুরি অবস্থা তাদের দরকার, যারা জরুরি সংকটে আছে।”

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, ‘দল হিসেবে ব্যর্থতার দগদগে ঘা যাদের, যারা নির্বাচনে ব্যর্থ, আন্দোলনে ব্যর্থ; যারা দেড় বছরেও খালেদা জিয়ার জন্য দেড় মিনিটও আন্দোলন করতে পারেনি; বিরোধী দল হিসেবে দায়িত্বশীল আচরণে ব্যর্থ, ডেঙ্গু প্রতিরোধেও ব্যর্থ, তাদের জন্যই আজকে জরুরি অবস্থা দরকার, জরুরিভাবে তাদের সংকট থেকে উদ্ধার করার জন্য।’

এ সময় বিএনপিকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ‘যারা কাজ করে না, তারাই আজকে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। যারা বন্যা দুর্গতদের পাশে দাঁড়ায় না, তারাই বন্যা দুর্গতদের নিয়ে রাজনীতি করে। যত দোষ নন্দ ঘোষ, সরকারের ঘাড়ে দোষ চাপায়।’

এদিকে দেশকে খারাপ কিছুর হাত থেকে রক্ষা করতে ডেঙ্গু নিয়ে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কম কথা বলার পরামর্শ দিয়েছেন সেতুমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এ সময় অতি কথা দেশের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনতে পারে। অতি কথন থেকে দায়িত্বশীল সবাইকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা কথা কম বলব, কাজ করব। এ সময়টি অত্যন্ত সংবেদনশীল। এ সময় অতি কথা দেশের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনতে পারে। অতি কথন থেকে দায়িত্বশীল সবাইকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। কথা কম বলে আমাদের বেশি বেশি করে কাজ করতে হবে। মানুষকে বাঁচাতে হবে, আতঙ্ক থেকে বাঁচাতে হবে।’

সতর্কতা অবলম্বন করে সবাইকে ঈদে বাড়ি যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘একটা মহল আতঙ্ক ছড়াচ্ছে, যেন ঈদের সময় মানুষ বাড়িতে না যায়। বাড়িতে কেন যাবেন না? সবারই ইচ্ছে আছে পরিবার-পরিজন নিয়ে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করার। সবাই বাড়ি যাবেন, কিন্তু সতর্ক থাকবেন। আমাদের অনুরোধ, ডেঙ্গু সম্পর্কে সতর্ক থাকবেন।’

সারা দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবিলায় চিকিৎসকদের নিয়ে মনিটরিং সেল গঠন করা হচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গতকাল আমরা বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছি। সারা বাংলাদেশে চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে মনিটরিং সেল গঠন করা হবে। সারা বাংলাদেশের সর্বত্রই এই মনিটরিং সেল ডেঙ্গু আক্রান্ত মানুষের চিকিৎসা, শনাক্তকরণ, পরীক্ষা, চিকিৎসা ঠিকমতো হচ্ছে কি না, কোনো অবহেলা হচ্ছে কি না, এসব বিষয় দেখবে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এই সেল গঠন করা হয়েছে। আমরা বৈঠক করেছি, আজকের বৈঠক চূড়ান্ত রূপ নেবে। যত দিন না পর্যন্ত পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ, ডেঙ্গুমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে পারব, তত দিন আমাদের লড়াই চলবে।’