প্রবাসীদের ভোটার তালিকা উদ্বোধন করলেন প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী

1

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ হাই কমিশন এবং নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে আয়োজিত ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে প্রবাসীদের ভোটার তালিকা ও জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ইমরান আহমদ এবং বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার। অনুষ্ঠান নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব মোঃ আলমগীর এর স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হয় এরপর পাওয়ারপয়েন্ট প্রেসেন্টেশন করেন এনআই ডির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম। নির্বাচন কমিশনারবৃন্দ এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার বক্তব্য রাখেন। এরপর মালয়েশিয়া প্রান্তের ডেপুটি হাই কমিশনার ওয়াহিদ আহমেদ, মান্যবর হাইকমিশনার শহিদুল ইসলাম, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব সেলিম রেজা, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এবং প্রবাসীদের মধ্যে থেকে তিনজন বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ডঃ আহমদ মনিরুস সালেহীন, যুগ্ম-সচিব ফজলুর রহমান, নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোখলেছুর রহমান এবং হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তাবৃন্দ। অনুষ্ঠানে মাননীয় মন্ত্রী বলেন, আজ আমি গর্বিত যে প্রবাসীদের নিয়ে আমার কাজ আজ আমি তাদের সাথে নিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্রের কার্যক্রম উদ্বোধন করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের নেত্রী এবং তিনি দেশে ও প্রবাসে সকল জনগণের কল্যাণ কামনা করেন তারই একটি উদ্যোগ প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধন করা এবং জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান করা। মাননীয় মন্ত্রী নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করে বলেন যারা প্রবাসে কাগজপত্রের বৈধতার সমস্যায় ভোগেন তাদের বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান এবং ভোটার তালিকায় নাম নিবন্ধন করার ক্ষেত্রে যেন সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয়। মান্যবর হাইকমিশনারের বলেন দীর্ঘ প্রবাস চাকরি জীবনে সর্বত্রই তিনি শুনেছেন প্রবাসীরা জাতীয় পরিচয়পত্র চায় এবং ভোট দিতে চায় আজ সেই কার্যক্রম শুরু হচ্ছে যা ঐতিহাসিক। প্রবাসীদের কল্যাণে এই কার্যক্রম শুরু করার জন্য তিনি বাংলাদেশ সরকার এবং নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানান এবং অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্য মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় কে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব বলেন, সরকার প্রবাসীদের কল্যাণে কাজ করে এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় কাজ করছে এই ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হলো এবং এই কার্যক্রমে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে যাবে। নির্বাচন কমিশনারগণ এই কার্যক্রম শুরু করার এবং সফলতা কামনা করেন তারা বলেন যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসী কল্যাণ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের একযোগে সহযোগিতা করে এটির বাস্তবায়ন করবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, বাংলাদেশের নাগরিক বিশ্বের যেখানেই থাকুক তারা জাতীয় পরিচয় পত্রের আওতায় আসবে ভোটার তালিকার আওতায় আসবে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের গর্বিত নাগরিক হিসেবে সারাবিশ্বে বিচরণ করবে। জাতীয় পরিচয় পত্র অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং জীবনের প্রায় সর্বক্ষেত্রেই এটির দরকার হয় তাই নির্বাচন কমিশন সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রবাসীদের জন্য এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে কিভাবে কার্যক্রমটি করা হবে তা তুলে ধরেন। প্রবাসে অবস্থিত ব্যক্তিগণ একটি পোর্টালের মাধ্যমে অনলাইনে তাদের নাম নিবন্ধন করবে এবং বাংলাদেশ থেকে এর সত্যতা যাচাই করার পরে তাদের প্রবাসে থেকেই আঙ্গুলের ছাপ চোখের স্ক্যান এবং ছবি সংগ্রহ করা হবে। তারপর বাংলাদেশ থেকে প্রিন্ট করে আবার মালয়েশিয়ায় স্মার্ট কার্ড সরবরাহ করা হবে অর্থাৎ একজন প্রবাসী বাংলাদেশ না এসেই বাংলাদেশের জাতীয় স্মার্টকার্ড গ্রহণ করতে পারবে। পাশাপাশি ভোটার তালিকার নাম নিবন্ধিত হবে।