নিহতদের পরিবারকে ১ লাখ করে টাকা দেয়ার আশ্বাস রেলমন্ত্রীর

7

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে ১ লাখ টাকা করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। অন্যদিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার করে টাকা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আজ সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতদের পরিবারকে ১ লাখ টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। এছাড়া আহতদের পরিবারকে ১০ হাজার করে টাকা দেওয়ার ঘোষণা দেন মন্ত্রী। এর আগে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। হবিগঞ্জের ৭ জন নিহত : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ট্রেন দুর্ঘটনায় হবিগঞ্জে ৭ জন নিহত হয়েছেন। তাদের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।  নিহতা হলেন-  হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি আলী মোহাম্মদ ইউসুফ, চুনারুঘাট উপজেলার রুবেল মিয়া, শহরতলীর বহুলা গ্রামের আলমগীর আলমের ছেলে ইয়াছিন আলম, বানিয়াচং উপজেলার মদনমুরত গ্রামের আয়ুব হোসেনের ছেলে আল আমিন, তাম্বলীটুলা গ্রামের সোহেল মিয়ার শিশু কন্যা আদিবা, চুনারুঘাট উপজেলার পীরের গাওয়ের সুজন মিয়া ও নবীগঞ্জ উপজেলার বনগাও গ্রামের হারুন মিয়ার পুত্র নজরুল ইসলাম।  হবিগঞ্জে জেলা প্রশাসক হামরুল হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আমরা হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে দাফন-কাফনের জন্য ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করব। ঘটনাস্থল ব্রাহ্মণবাড়িয়া হওয়ায় সেখানকার জেলা প্রশাসক যাবতীয় কার্যক্রম গ্রহণ করবেন। ভয়াবহ এই ট্রেন দুর্ঘটনায় হবিগঞ্জে নিহত সকলের পরিবারেই চলছে শোকের মাতম। স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ।  ছাত্রদল নেতার মৃত্যু : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও সরকারী বৃন্দাবন কলেজের ছাত্র আলী মোহাম্মদ ইউসুফ (৩১) নিহত হয়েছেন। ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক মোঃ আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। তার মৃত্যুতে শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল। আজ মঙ্গলবার এক শোকবার্তায় নেতৃদ্বয় বলেন, ইউসুফ সকল ভয়ভীতি উপেক্ষা করে হবিগঞ্জ ছাত্রদলের হয়ে দলীয় প্রতিটি কর্মসূচীতে সামনের সারিতে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এছাড়া মরহুম ইউসুফ হবিগঞ্জ ছাত্রদলকে সু সংগঠিত করতে যে ভুমিকা রেখেছেন ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা তা কখনো ভুলবেনা। তারা বলেন, ইউসুফের মৃত্যুতে পরিবারবর্গ, আত্মীয় স্বজন এবং গুনগ্রাহীরা শোকাবিভুত। তার মৃত্যুতে সবার মত আমরাও গভীরভাবে শোকাহত। তারা আরো বলেন, যাদের অবহেলার কারণে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটলো তাদের অবশ্যই খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। এছাড়াও দুর্ঘটনায় নিহত এবং আহত পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। তারা আলী মোহাম্মদ ইউসুফের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক বিহব্বল পরিবারবর্গ ও আত্মীয় স্বজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।।