টেকনাফে গোলাগুলিতে রোহিঙ্গা নিহত

2
কক্সবাজারের টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)র সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা এক মাদক কারবারি নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে হ্নীলা ইউনিয়ন জাদীমুড়াস্থ নাফনদী সীমান্ত এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার পিস ইয়াবাসহ অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করেছে বিজিবি। এ ঘটনায় বিজিবি দুই সদস্য আহত হয়েছেন।
বিজিবি জানায়, মিয়ানমার থেকে একটি বড় ইয়াবার চালান হ্নীলা ইউনিয়ন জাদীমুড়াস্থ নাফনদী সীমান্ত এলাকা দিয়ে প্রবেশের গোপন সংবাদ পেয়ে বিজিবি জওয়ানরা রাতেই ওই এলাকায় অবস্থান নেয়।কিছুক্ষণ পর মাদক পাচারকারীরা বস্তা মাথায় করে যাওয়ার সময় তাদের চ্যালেঞ্জ করলে আকষ্মিক ভাবে বিজিবির এলোপাতাড়ী গুলি বর্ষণ শুরু করে । বিজিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। উভয় পক্ষের ৬-৭ মিনিট গোলাগুলি চলাকালীন সময়ের মধ্যে মাদক পাচারকারী দলের কয়েকজন সদস্য কৌশলে কেওড়া বাগানের ঝোপের মধ্যে পালিয়ে যায়। গোলাগুলি থেমে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর সেখান থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় অজ্ঞাত নামা এক যুবককে পড়ে থাকতে দেখে।

বিজিবি সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।  পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগে জিজ্ঞাসাবাদে সে থাইয়ংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা বলে জানায়। এদিকে ঘটনাস্থল তল্লাশী করে ৩ কোটি ৯০ লক্ষ টাকার ১ লাখ ৩০ হাজার পিস ইয়াবা, দেশীয় তৈরী ১টি এলজি অস্ত্র, ১টি কার্তুজ উদ্ধার করতে সক্ষম হয় বিজিবি। অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ ২ বিজিবি অধিনায়ক লেঃ কর্নেল ফয়সাল হাসান খান (পিএসসি) জানান, মাদক কারবারে জড়িত অপরাধীরা এখনো বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে তাদের অপকর্ম অব্যাহত রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাদের অপচেষ্টা প্রতিরোধ করার জন্য সীমান্ত প্রহরী বিজিবির মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।