ওয়ালটন-ডিআরইউ বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড সোমবার

1

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্যদের আগামীকাল সোমবার ‘ওয়ালটন-ডিআরইউ বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড ২০১৬’ দেওয়া হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম।

এতে সামগ্রিক পৃষ্ঠপোষকতা করছে দেশের শীর্ষস্থানীয় ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিকস, অটোমোবাইলস ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন।

ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ জানান, সোমবার বেলা ১১টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে।

২৬টি বিষয়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিবেদনের জন্য এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে। প্রতিটি অ্যাওয়ার্ডের আর্থিক মূল্য ৫০ হাজার টাকা। এ ছাড়া প্রতিটি বিষয়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিবেদককে সম্মাননাপত্র ও ক্রেস্ট দেওয়া হবে।

অ্যাওয়ার্ডের বিষয়গুলো হলো:

প্রিন্ট মিডিয়া: শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, অবজেকটিভ ইকোনোমি, নগরীর সমস্যা ও সম্ভাবনা, অপরাধ ও আইন-শৃঙ্খলা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত, বৈদেশিক সম্পর্ক (কূটনীতি ও জনশক্তি), ক্রীড়া, স্বাস্থ্য, রাজনীতি ও বিচার ব্যবস্থা, কৃষি, ইতিহাস-ঐতিহ্য-সংস্কৃতি, আর্থিক খাত (ব্যাংক ও পুঁজিবাজার), নারী ও শিশু অধিকার।

টেলিভিশন : অর্থনীতি, নগরীর সমস্যা ও সম্ভাবনা, অপরাধ ও আইনশৃঙ্খলা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, ক্রীড়া, সুশাসন ও দুর্নীতি, মানবাধিকারওস্বাস্থ্য।

অনলাইন : মানবাধিকার, উন্নয়ন ও সম্ভাবনা।

রেডিও : যেকোনো বিষয়ে বিশ্লেষণধর্মী ও অনুসন্ধানী প্রতিবেদন।

অ্যাওয়ার্ডের জন্য গত ১ অক্টোবর ২০১৫ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ এর মধ্যে প্রকাশিত ও প্রচারিত প্রতিবেদন জমা দিতে বলে ডিআরইউ। গত ৩০ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে যারা ডিআরইউ কার্যালয়ে আবেদন জমা দিয়েছেন, তাদের আবেদন জুরি বোর্ড যাচাইবাছাই করেছেন। সোমবার নির্বাচিতদের হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দেওয়া হবে।

ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ রাইজিংবিডিকে বলেন, রিপোর্টারদের পেশাগত কাজের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতি বছরের মতো এবারও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) বিভিন্ন বিষয়ে শ্রেষ্ঠ রিপোর্টিংয়ের জন্য অ্যাওয়ার্ড দেবে। এবার সামগ্রিক পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে এগিয়ে এসেছে ওয়ালটন। এবার ২৬টি বিষয়ে পুরস্কার দেওয়া হবে।

ডিআরইউর সভাপতি জামাল উদ্দিন বলেন, এ অ্যাওয়ার্ডের জন্য একটি টেলিকম কোম্পানি স্পন্সর হওয়ার কথা থাকলেও পরে তারা এগিয়ে আসেনি। এমন বিপদের মুহূর্তে ওয়ালটন গ্রুপ আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা আমাদের বেস্ট রিপোর্টিংয়ের সব পুরস্কার দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি সারা বছর ধরে আমাদের সব কাজে ছায়ার মতো ছিল। আশা করছি, ভবিষ্যতেও এভাবে আমাদের সহযোগিতা করবে ওয়ালটন।